বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ফায়েজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত দুইটার দিকে পুলিশ ঝিনাইগাতী বাজারে অভিযান চালায়। এ সময় স্থানীয় ভাঙারি ব্যবসায়ী হেমন্ত ও সেলিম মিয়ার দোকানের সামনে একটি ট্রাক পাওয়া যায়। ওই ট্রাকে মাধ্যমিকের বিভিন্ন শ্রেণির বই ছিল। ট্রাক থেকে মোট ৩ হাজার ৭০০ কেজি ওজনের বই জব্দ করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের ২০১৯, ২০২০ ও ২০২১ সালের মাধ্যমিকের বিভিন্ন শ্রেণির বই। পরে হেমন্ত ও সেলিমকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়।

পুলিশ বলছে, তারা আটক হওয়া হেমন্ত ও সেলিমের সঙ্গে কথা বলে এই বইয়ের উৎস জানার চেষ্টা করছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা বলেছেন, এলাকায় ভাঙারি মালামালের বেশ কয়েকজন ফেরিওয়ালা রয়েছেন। তাঁরা বিভিন্ন এলাকা ঘুরে পুরোনো মালামাল কেনেন। এরপর তাঁদের (হেমন্ত ও সেলিম) দোকানে বিক্রি করেছেন। এভাবেই বইগুলো পেয়েছেন বলে ওই দুজন দাবি করেছেন। বই জব্দের ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রেজুয়ান শুক্রবার বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, শিক্ষা বিভাগে বই আসার পর সেগুলো চাহিদা অনুয়ায়ী নির্ধারিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সরবরাহ করা হয়। সুতরাং জব্দ বইগুলো কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বিক্রি করা হতে পারে। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আইনগত ব্যবস্থা নেবেন।

ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবেল মাহমুদ বলেন, শিক্ষা বিভাগের পক্ষ থেকে থানায় নিয়মিত মামলা হবে। পরে পুলিশ মামলার তদন্ত করে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন