গমচাষিরা বলেন, প্রতি বিঘা জমিতে গম চাষে হালচাষ, বীজ, সার, কীটনাশক, সেচ খরচ ও শ্রমিকের মজুরি বাবদ আট হাজার টাকার মতো খরচ হয়। কাঁচা গম বিক্রিতে লাভ হচ্ছে ছয়–সাত হাজার টাকা।

গতকাল বালিয়াডাঙ্গী বাজারে নছিমনবোঝাই কাঁচা গমগাছ বিক্রি করতে আসেন কুশলডাঙ্গী গ্রামের নওশাদ আলী। তিনি বলেন, রানীশংকৈল উপজেলার কুমোড়গঞ্জ এলাকার এক গমচাষির দুই বিঘা জমির গম তিনি কিনে নিয়েছেন। দুই বিঘা জমিতে কমপক্ষে তিন হাজার আঁটি গমগাছ পাওয়া যাবে। বাজারে এখন প্রতি আঁটি গমগাছ বিক্রি হচ্ছে ১০ টাকা। ৩০ হাজার টাকা পাওয়া যাবে।

কাঁচা গমের আঁটি কিনতে এসেছিলেন গোয়ালগাড়ি গ্রামের রাইসূল আলম। তিনি বলেন, বাড়িতে তিনি ছয়টি ছাগল পালন করেন। আগে এলাকায় সেগুলো নিজেরা চড়ে খেত। এখন সব খেতেই ফসল থাকায় ছাগলগুলো চড়ে খেতে পারে না। তাই গমগাছ কিনতে এসেছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ২০২১ সালে জেলায় গমের আবাদ হয় ৪৭ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে। চলতি মৌসুমে ৪৭ হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে গম চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে, কিন্তু চাষ হয়েছে ৪৫ হাজার ১৯২ হেক্টরে।

অধিদপ্তরের ঠাকুরগাঁও কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু হোসেন বলেন, জেলায় প্রতিবছর কমে যাচ্ছে গমের চাষ। এ মৌসুমে এমনিতেই লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কম জমিতে গমের আবাদ হয়েছে। তার ওপর চারা কেটে বিক্রি করা হলে গমের উৎপাদন আরও কমে যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন