বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রায়হান হোসেন বলেন, সবুজের মা ছবি বেগমের কাছে গরুর বিক্রির ৫৪ হাজার টাকা ছিল। মায়ের কাছ থেকে সবুজ গরু বিক্রির টাকাগুলো চাচ্ছিল। ছেলে টাকা চুরি করবে ভেবে ছবি গরু বিক্রির টাকা ঘরে না রেখে সব সময় নিজের কোমরে রাখতেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ছবি ঘাস কাটতে বাড়ির পাশে একটি ধানখেতে গিয়েছিলেন। ছেলে সবুজ ও তাঁর স্ত্রী রোখসানাও ছবির সঙ্গে একই খেতে ঘাস কাটছিলেন। সেখানে সবুজ তাঁর মায়ের কাছে গরু বিক্রির টাকাগুলো আবারও চান।

এ নিয়ে ধানখেতে মা ও ছেলের মধ্যে ঝগড়া হয়। এ সময় সবুজ তাঁর স্ত্রী রোখসানার সহায়তায় গলায় গামছা পেঁচিয়ে মাকে হত্যা করে গরু বিক্রির টাকার বের করে নেন। এরপর তাঁরা মায়ের লাশ ধানখেতে ফেলে রেখে বাড়িতে আসেন। ওইদিন বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে এক ব্যক্তি বাড়িতে যাওয়ার পথে ছবিকে ধানখেতে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর গ্রামবাসী এসে ছবিকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। প্রাথমিক অবস্থায় ছবির স্বামী, ছেলে ও ছেলের স্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদে জন্য থানায় আনা হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর নিহত ছবির স্বামীকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় ছবির ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেছেন। ওই মামলায় সবুজ ও তাঁর স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির জন্য দুজনকে আদালতে নেওয়া হবে।

বদলগাছি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুল ইসলাম বলেন, ছবির হত্যার রহস্য উদ্‌ঘাটন হয়েছে। গরু বিক্রির টাকা ছিনিয়ে নিতে ছবিকে তাঁর ছেলে ও ছেলের স্ত্রী দুজন মিলে শ্বাসরোধে হত্যা করেছেন। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তাঁরা হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন