বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, নির্মাণাধীন ভবনটির রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করতেন ময়নুল হক। গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে পেটব্যথার কথা বলে ওষুধ আনতে যান ময়নুল। পরে রাতে আর তিনি বাড়িতে ফেরেননি।

রাজমিস্ত্রি খলিলুর রহমান বলেন, আজ সকালে ময়নুলের বাড়ির লোকজন খুঁজতে এসে নির্মাণাধীন ভবনের লিফটের জন্য খোঁড়া গর্তে তাঁর লাশ পান।

নিহত ময়নুল হকের বড় ভাই লাল বাবু বলেন, রাত ১২টা পর্যন্ত বাড়িতে না ফেরায় তাঁদের সন্দেহ হয়। আজ ভোরে সবজিবাজার–সংলগ্ন নির্মাণাধীন ভবনে গিয়ে দেখেন, লিফটের জন্য খোঁড়া গর্তের পানিতে তাঁর ভাইয়ের লাশ পড়ে আছে।

নীলফামারী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রউপ বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ২৫০ শয্যার নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর রহস্য বের হবে। এ ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন