বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানায়, গতকাল সন্ধ্যায় মধুপুর চৌরাস্তা বাজারের পাশে একটি চায়ের দোকানে টেবিলের নিচে থেকে ৩০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় চা-দোকানি আকিদুল ইসলামকে আটক করে গাড়িতে তুলতে গেলে বাজারের লোকজন ও অন্য দোকানিরা পুলিশকে বাধা দেয়। পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশের ওপর হামলা করে। এ সময় ইটের আঘাতে পুলিশ সদস্যসহ স্থানীয় কয়েকজনও আহত হন।

খবর পেয়ে ঝিনাইদহ সদর থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে শটগান থেকে পাঁচটি গুলি নিক্ষেপ করে এলাকাবাসীকে ছত্রভঙ্গ করে। পরে আহত পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

নামে প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই এলাকার এক বাসিন্দা প্রথম আলোকে বলেন, গাঁজা উদ্ধারের সঙ্গে চা-দোকানি আকিদুল ইসলামের জড়িত থাকার বিষয়টি বিশ্বাসযোগ্য নয়। সেখানে অন্য কেউ গাঁজা রেখেছেন অথবা আকিদুলকে ফাঁসানোর জন্য এ কাজ করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।

ঝিনাইদহ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ সোহেল রানা বলেন, এই ঘটনার পর ওই এলাকার ১৫ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে আটক ব্যক্তিদের মধ্যে ওই চা-দোকানি নেই। আটক ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আশরাফুজ্জামান সজীব বলেন, হাসপাতালে আসা পুলিশ সদস্যদের হাত-পাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ইট ও লাঠির আঘাত রয়েছে। তবে আঘাত গুরুতর নয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন