বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর মধ্যে নৌকার বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন ঘাগোয়া ইউপিতে আমিনুর জামান, গিদারিতে হারুনুর রশীদ ও মোল্লারচর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ–সমর্থিত প্রার্থী সাইদুজ্জামান সরকার।

এদিকে লক্ষ্মীপুর ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ইউনিয়ন জামায়াতে ইসলামীর প্রচার সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ নির্বাচিত হয়েছেন। এ ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মালিবাড়িতে সোয়েব মো. রাসেল, কুপতলায় রফিকুল ইসলাম সরকার, সাহাপাড়ায় মশিউর রহমান সরকার, রামচন্দ্রপুরে মোসাব্বীর হোসেন ও বোয়ালিতে শহিদুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।

এ ছাড়া চার ইউপিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচিত প্রার্থীরা হলেন বল্লমঝাড়ে জুলফিকার রহমান, বাদিয়াখালিতে সাফায়েতুল হক, খোলাহাটি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুম হাক্কানী ও কামারজানিতে মতিয়ার রহমান।

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের এমন ভরাডুবির কারণ জানতে চাইলে গাইবান্ধা সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাইল করিম বলেন, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হলেও আঞ্চলিক নির্বাচনে আন্তরিকতা ও স্থানীয় প্রভাব বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই এখানে ভোটাররা শুধু প্রতীক দেখেই ভোট দেন না। এ ছাড়া নৌকার কর্মী–সমর্থকেরা দলের প্রার্থীদের পক্ষে ঠিকমতো কাজ করেননি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন