বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত শুক্রবার সকালে রমজান আলী তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী জুয়েল রানাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে মারধর করেন বলে অভিযোগ ওঠে। ওই শিশুর পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার দিন সকাল ১০টার দিকে জেলেরা জাল দিয়ে সরকারপাড়া এলাকার একটি পুকুরে মাছ ধরছিলেন। এ সময় পানিতে মরা তিনটি নাইলোটিকা মাছ ভাসতে দেখে সেগুলো হাতে তুলে নেয় জুয়েল।

এতে জুয়েলকে নানা কথা শোনান হাওয়া মুরমু ও তাঁর সহযোগী রমজান আলী। একপর্যায়ে রমজান আলী রশি এনে একটি গাছের সঙ্গে জুয়েলের দুই পা বেঁধে লাঠি দিয়ে জুয়েলকে বেদম মারধর করেন। এরপর গতকাল সোমবার রাতে চিকিৎসার জন্য পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জুয়েলকে ভর্তি করা হয়।

পীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায় জানান, এ ঘটনায় আজ সকালে জুয়েলের বাবা মো. মনিরউদ্দীন বাদী হয়ে পীরগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে রমজানকে তাঁর নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে বেলা সাড়ে তিনটার দিকে ঠাকুরগাঁও আদালতে চালান করে।

মামলার বাদী মনিরউদ্দীন বলেন, ‘আমি মামলা করেছি আর পুলিশ নিজের ইচ্ছেমতো কাজ করে আসামি ধরেছে, কোনো তদবির করতে হয়নি। দেশে সুবিচার আছে।’

রমজান গ্রেপ্তার হওয়ার পর জুয়েলের মা মাজেদা বলেন, ‘মোর নিষ্পাপ ছোয়াডা কারও কোনো ক্ষতি করেনি। বিনা কামে তাক মাইরলে রমজান। এলা সুবিচার পামো আশা করু।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন