বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত ব্যক্তির পরিবার সূত্রে জানা গেছে, রমজান আলী পবিত্র কোরআনে হাফেজ ছিলেন। তিনি এর আগে স্থানীয় একটি মসজিদে মুয়াজ্জিন পদে চাকরি নেন। মাসখানেক আগে ওই চাকরি চলে যাওয়ায় তিনি সংসারের হাল ধরতে অটোরিকশা চালানো শুরু করেন।

নিহত ব্যক্তির বন্ধু আবদুল হালিম জানান, গতকাল রোববার রমজান সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অটোরিকশা চালিয়েছেন। দুপুরের পর থেকে তিনি বাড়িতেই ছিলেন। রাতে তাঁরা দুজন একসঙ্গে এশার নামাজ আদায় করেছেন। নামাজের পর রমজান আবার রিকশা নিয়ে বের হন। এর পর থেকেই রমজান নিখোঁজ। অনুমানিক রাত ১২টার দিকে তাঁকে ১৫–২০ বার ফোন করে পাওয়া যায়নি। আজ সোমবার সকাল নয়টার দিকে আবার ফোন করলে পুলিশ ফোন ধরে। এরপর ইছালী বিলের পাশে গিয়ে তাঁর লাশ দেখতে পাই।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুবাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শরীফ হোসেন জানান, আজ সকালে স্থানীয় লোকজন ইছালী ব্রিজ এলাকায় সড়কের পাশে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেন। পরে ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। নিহত রমজানের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, রাতের কোনো এক সময়ে দুর্বৃত্তরা তাঁকে শ্বাসরোধে হত্যা করে অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে গেছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন