default-image

গাজীপুর এলাকায় আধিপত্য ধরে রাখতে এবং সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে সাদেক আলী (৩০) নামের এক যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় এজাহারভুক্ত চার আসামিসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গতকাল শুক্রবার নিহতের ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করে সদর থানায় মামলা করেন। পরে রাতেই নগরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মামলার প্রধান আসামি পশ্চিম ভুরুলিয়া এলাকার শফিকুল ইসলামের ছেলে কাওসার আহমেদ আকাশ (২৩), শহরের মধ্য ছায়াবীথি এলাকার আমজাদ হোসেন মুকুলের ছেলে মেহেদী হাসান বিজয় (১৮), মারিয়ালী-কলাবাগান এলাকার নুরুজ্জামানের ছেলে মো. শামীম (১৮), কালীগঞ্জ উপজেলার কলাপাটুয়া এলাকার রেজাউল করিমের ছেলে ইমন আহমেদ (২০), সদর উপজেলার কুমুন এলাকার ইসমাইল হোসেনের ছেলে মোবারক হোসেন ওরফে মোবা (১৯) ও মধ্য ছায়াবীথি এলাকার বাদল চন্দ্র বিশ্বাসের ছেলে নিলয় চন্দ্র বিশ্বাস (১৮)।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (ক্রাইম ও মিডিয়া) জাকির হাসান আজ শনিবার দুপুরে সদর থানায় সংবাদ বিফ্রিংয়ে এসব তথ্য জানান। এ সময় সহকারী পুলিশ কমিশনার থোয়াই অংপ্রু মারমা, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

জাকির হাসান বলেন, সাদেক আলী গত বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে ছেলের জন্য বিস্কুট কিনতে বাসাসংলগ্ন গোপালের দোকানে যান। সেখানে অভিযুক্ত যুবকদের সঙ্গে একটি তুচ্ছ বিষয় নিয়ে সাদেক আলীর সঙ্গে তর্কবিতর্ক হয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের সরিয়ে দিলে সাদেক বাসায় চলে যান। পরে আসামিরা সাদেককে বাসা থেকে আবার রাস্তায় ডেকে আনেন। একপর্যায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা সাদেককে এলোপাতাড়ি মারধর ও চায়নিজ কুড়াল দিয়ে গলায় আঘাত করেন। তাঁর মৃত্যু নিশ্চিত করে হামলাকারীরা পালিয়ে যান।

এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, মামলার দুই নম্বর আসামি মেহেদী হাসান বিজয় মধ্য ছায়াবীথি এলাকার একটি প্রভাবশালী পরিবারের সদস্য। এলাকায় আধিপত্য ধরে রাখার জন্য তাঁর নেতৃত্বে অপর আসামিরা সমবয়সী কয়েকজনের একটি বখাটে গ্রুপ পরিচালনা করেন। ওই গ্রুপগুলোর সদস্যদের অংশগ্রহণে তাঁরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। এ ঘটনায় মামলার তদন্তকাজ অব্যাহত আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন