default-image

গাজীপুর সদর উপজেলার জয়দেবপুর থানার মনিপুর এলাকায় স্ত্রীকে সাত টুকরা করে হত্যার ঘটনায় স্বামী জুয়েল আহমদের (২৫) বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ। হত্যাকাণ্ডের চার দিনের মাথায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশ অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে।

নিহত ওই নারী হলেন পোশাককর্মী রেহেনা আক্তার (২০)। তিনি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর থানার ইসলামপুর গ্রামের আবদুল মালেকের মেয়ে। অভিযুক্ত জুয়েলও একই গ্রামের বাছেদ মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে ৭ মার্চ বিকেলে গাজীপুর সদর উপজেলার মনিপুর এলাকার কয়েকটি স্থান থেকে রেহেনা আক্তারের সাত টুকরা লাশ উদ্ধার করা হয়। ওই দিনই এলাকাবাসী নিহতের স্বামী কারখানাশ্রমিক জুয়েল আহমদকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। পরদিন ৮ মার্চ ওই ঘটনায় জয়দেবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়।

পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গ্রেপ্তার জুয়েলকে গাজীপুরের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক হামিদুল ইসলামের কাছে হাজির করলে জুয়েল হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জাবানবন্দি দেন। পরে পুলিশ নিহতের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন সংগ্রহ করে বৃহস্পতিবার বিকেলে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জহিরুল ইসলাম বলেন, সব সাক্ষ্যপ্রমাণ এবং আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জাবানবন্দি পাওয়া গেছে। পরে ডিআইজি হাবিবুর রহমানের নির্দেশে চার দিনের মাথায় মামলার চূড়ান্ত প্রতিদেন দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন