default-image

নাটোরের গুরুদাসপুরে নিজ বাড়িতে সেলিনা বেগম (৪২) নামের এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। আজ সোমবার বিকেলে পৌর শহরের উত্তর নারীবাড়ি মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

সেলিনা বেগম উত্তর নারীবাড়ি মহল্লার নজরুল ইসলামের স্ত্রী। হত্যাকাণ্ডের সময় তিনি বাড়িতে একাই ছিলেন। তবে কেন কী কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, তাৎক্ষণিকভাবে বলতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাড়ির জায়গা নিয়ে গৃহবধূর স্বামী নজরুল ইসলামের সঙ্গে তাঁর অন্য দুই ভাই ইমাজ উদ্দিন ও আবদুর রশিদের দ্বন্দ্ব রয়েছে। এ নিয়ে কয়েক বছর ধরে তাঁদের মধ্যে পারিবারিক বিরোধ চলে আসছে।

নিহত সেলিনার বড় মেয়ে ববি খাতুন বলেন, গতকাল রোববার তিনি শ্বশুরবাড়ি (টাঙ্গাইল) থেকে বাবার বাড়িতে আসেন। বাবা জীবিকার সন্ধানে বাইরে ছিলেন। সোমবার বিকেলে মাকে বাড়িতে একা রেখে বাড়ির অদূরে দরজির দোকানে গিয়েছিলেন তিনি। ফিরে এসে খাটের ওপর মায়ের নিথর দেহ দেখতে পান। তাঁর কান্নাকাটিতে আশপাশের মানুষ জমায়েত হন বাড়িতে।

সেলিনার স্বামী নজরুল ইসলাম বলেন, তিনি শ্রমজীবী মানুষ। কারও সঙ্গে বিরোধ নেই। তবে ভাইদের সঙ্গে জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। এ নিয়ে বিভিন্ন সময় ভাইয়েরা তাঁকে ভয়ভীতি দেখাতেন। তবে তাঁরাই এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কি না, তিনি সন্দিহান।

গুরুদাসপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুর রাজ্জাক বলেন, হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গোয়েন্দা পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে। তবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করা যায়নি। বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন