বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন জানান, এক বছর ধরে স্বামী ও শাশুড়ির সঙ্গে বিরোধ চলছিল পারভিন আক্তারের। এ অবস্থায় একমাস আগে পারভিন আক্তার তাঁর কন্যাসন্তানকে নিয়ে ঢাকায় চলে যান। কিছুদিন আগে তিনি জানতে পারেন, স্বামী তাঁকে তালাক দিয়েছেন। এর সত্যতা যাচাই করতে গতকাল মঙ্গলবার সকালে তিনি স্বামীর বাড়ির পাশের একটি ঘরে ওঠেন।

রাত ১১টার দিকে তাঁর ফোনে কল এলে তিনি দরজা খুলে বাইরে বের হন। এর পর থেকেই নিখোঁজ পারভীন। সকালে বাড়ির পাশের একটি ডোবা থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, পারিবারিক বিরোধের জেরে রাতে পারভিনকে ডেকে নিয়ে তাঁর স্বামী হত্যা করেছেন বলে ধারণা করছে পুলিশ। খবর পেয়ে ঝালকাঠির পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) প্রশান্ত কুমার দে, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. খলিলুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

ঝালকাঠি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খলিলুর রহমান জানান, গৃহবধূর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাঁকে পিটিয়ে ও গলায় ওড়না পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে নিহত গৃহবধূর স্বামী তানজিল হাওলাদার পলাতক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন