default-image

গৃহবধূ মোছা. সফুরা খাতুন গতকাল রোববার সকালে বাবার বাড়িতে যান। সারা দিন থেকে সন্ধ্যায় নিজ বাড়িতে ফিরে দেখেন, পরিবারের চার সদস্য ঘরে অচেতন অবস্থায় পড়ে আছেন। ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের হড়িয়াখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাঁদের উদ্ধার করে স্থানীয় কমিউনিটি হাসপাতালে পাঠায়।

অচেতন হয়ে পড়া চারজন হলেন গৃহবধূ সফুরার স্বামী হারুন অর রশিদ (৫২), ছেলে হামিম মিয়া (১৫), মেয়ে আফিয়া আজিজা (১৮) ও জায়গির ছাত্র মোস্তাকীন। স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে আজ সোমবার সকালে সুস্থ হয়ে তাঁরা বাড়ি ফিরেছেন।
সফুরা খাতুন বলেন, সন্ধ্যার সময় কারও ঘুমিয়ে পড়ার কথা নয়। কিছুটা চেতনা ফিরলে আফিয়া আজিজা জানান, ঘরে রাখা পিঠা খাওয়ার পরই তাঁরা ঘুমে আচ্ছন্ন হয়ে পড়েন। তবে এ ঘটনায় তাঁর বাড়ি থেকে কোনো কিছু খোয়া যায়নি।

বিজ্ঞাপন

এলাকাবাসীর ভাষ্য, উচাখিলা ও রাজীবপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য বেড়েছে। এক মাসে অজ্ঞান পার্টির সদস্যরা কৌশলে রান্নাঘরে প্রবেশ করে খাবারের সঙ্গে ওষুধ মিশিয়ে রাখে। সেসব খাবার খেয়ে পরিবারের সদস্যরা অচেতন হয়ে পড়েন। তখন বাড়ির মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আরাফাত হোসেন বলেন, ধারণা করা হচ্ছে, খাদ্যদ্রব্যের মধ্যে কিছু মেশানো থাকতে পারে। এ বিষয়ে পরিবারের সদস্যরা থানায় অভিযোগ দিলে তদন্ত করে দেখা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন