বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, সকালে তসলিম তাঁর ছেলে নয়নকে নিয়ে তাঁদের এক আত্মীয়ের জানাজায় গিয়েছিলেন। জানাজা শেষে তাঁরা বাড়ি ফিরছিলেন। পথে সোনাদীঘি আদারপাড়া গ্রামের আবদুল কাদেরের (৪৮) বাড়ির কাছে এলে আবদুল কাদের ও তাঁর লোকজন তাঁদের ওপর হামলা চালান। তসলিমের সঙ্গে আবদুল কাদেরের জমি নিয়ে বিরোধ ছিল। এর জের ধরে ওই হামলা হয়।

কিছুক্ষণ পর খবর পেয়ে তসলিমের লোকজন ঘটনাস্থলে এলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষ চলাকালে প্রতিপক্ষ তসলিমকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করলে তিনি গুরুতর আহত হন। এরপর স্থানীয় লোকজন তাঁকেসহ আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। এ সময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তসলিমকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় তসলিমের ছেলে নয়ন মিয়া আহত হয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ ঘটনায় অপর পক্ষের আবদুল কাদেরের ছেলে নাজমুস সাকিবও আহত হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ওসি কামরুল ইসলাম বলেন, তসলিমের বুকের বাম পাশে বড় আঘাত রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, ধারালো কিছু দিয়ে তাঁর বুকে আঘাত করা হয়েছে। হাসপাতালে নেওয়ার আধঘণ্টার মধ্যেই মারা যান তসলিম। এ ঘটনায় তসলিম উদ্দিনের পরিবার মামলা করবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন