default-image

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় আহত ইজিবাইকচালক লেবু মিয়া (৩০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ বৃহস্পতিবার সকালে মারা গেছেন। এ নিয়ে দুর্ঘটনায় একই পরিবারের চারজনসহ নিহতের সংখ্যা ৫। আজ সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় লেবু মিয়া মারা যান।

লেবু মিয়া গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের রামপুরা গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে। আজ দুপুরে বরিশাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মান্নান মণ্ডল মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

এর আগে গতকাল বুধবার বিকেল চারটার দিকে ঢাকা-রংপুর জাতীয় মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের কালীতলা মাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। গতকাল একই পরিবারের নিহত চার সদস্য হলেন পলাশবাড়ী উপজেলার রামপুরা গ্রামের আনিছুর রহমান (৩০), তাঁর মা রেহেনা বেগম (৫০), স্ত্রী রাজিয়া সুলতানা (২৫) ও শ্যালক গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে জাহিদ মিয়া (২০)।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্র জানায়, গতকাল বিকেলে গোবিন্দগঞ্জ থেকে যাত্রীবাহী একটি ইজিবাইক পলাশবাড়ী উপজেলা শহরের দিকে যাচ্ছিল। পথে কালীতলা এলাকায় পৌঁছালে মালবোঝাই কাভার্ড ভ্যান পেছন থেকে ইজিবাইকটিকে চাপা দেয়। এতে ইজিবাইকের সাত যাত্রী আহত হন। তাঁদের উদ্ধার করে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক জাহিদকে মৃত ঘোষণা করেন। অপর আহত আনিছুর, তাঁর মা ও স্ত্রীকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল গভীর রাতে তাঁরা মারা যান। আহত দুজন গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেন।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মজিদুল ইসলাম বলেন, আহত ব্যক্তিদের মধ্যে গোবিন্দগঞ্জ হাসপাতালে একজনের মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত তিনজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে রাতে তাঁদের মৃত্যু হয়। আজ সকালে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ইজিবাইকচালক লেবু মিয়ার মৃত্যু হয়। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ৫।

এ নিয়ে গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খায়রুল ইসলাম জানান, চালক ও সহকারী পালিয়ে গেলেও কাভার্ড ভ্যানটিকে আটক করা হয়েছে। নিহত ব্যক্তির মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন