বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব জাফলংয়ের বাউরভাগ গ্রামের আলমাস আহমদ ও এবাদুল ইসলাম একসঙ্গে চলাফেরা করতেন। গতকাল রাতেও তাঁরা একসঙ্গে ছিলেন। রাত নয়টার দিকে এবাদুলকে মদ্যপ হয়ে আলমাসের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডা করতে দেখেছেন স্থানীয় লোকজন। এর কিছুক্ষণ পর পূর্ব জাফলংয়ের বাংলাবাজার এলাকা থেকে গুরুতর আহত অবস্থায় আলমাসকে উদ্ধার করেন স্থানীয় লোকজন। পরে পার্শ্ববর্তী একটি হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানকার চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

পুলিশ জানায়, ঘটনার পর থেকে এবাদুল গা ঢাকা দিয়েছেন। তিনি বেকার ছিলেন। এবাদুল আলমাস আহমদের সঙ্গেই চলাফেরা করতেন।

সিলেটের গোয়াইনঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিমল চন্দ্র দেব বলেন, নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি। গতকাল রাতে ঘটনার কিছুক্ষণ আগেও আলমাসের সঙ্গে এবাদুলকে দেখেছেন স্থানীয় লোকজন। ওই সময় এবাদুল মদ্যপ ছিলেন বলে জানা গেছে। এবাদুল এ হত্যার সঙ্গে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তাঁকে আটক করতে অভিযান চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন