বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, উপজেলা পরিষদের মাঠসংলগ্ন মহাসড়কে ডিজিটাল ওজন স্কেল স্থাপন করায় প্রতিদিন ওই স্থানে যানবাহনের লম্বা লাইন তৈরি হয়। এতে স্কেল এলাকার আশপাশে থাকা প্রতিটি সরকারি কার্যালয়ের প্রবেশের রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। বিশেষ করে গোয়ালন্দ উপজেলা হাসপাতালে রোগী আনা-নেওয়ার ক্ষেত্রে দুর্ভোগে পড়তে হয়। কখনো কখনো স্কেল এলাকার সামনে থেকে গোয়ালন্দ মোড়ের দিকে প্রায় দু-তিন কিলোমিটার যানজট তৈরি হয়।

এসব সমস্যার কথা বিবেচনা করে অবিলম্বে ডিজিটাল ওজন স্কেলটি অন্যত্র স্থানান্তরের দাবি জানান বক্তারা। এদিকে ওজন স্কেল স্থানান্তর না হওয়া পর্যন্ত হাসপাতালে যাতায়াতের জন্য বিকল্প রাস্তার ব্যবস্থা করার দাবি জানানো হয়। সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ না নেওয়া হলে স্থানীয় জনগণকে সঙ্গে নিয়ে বড় কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে বলে জানানো হয়।

এদিকে মানববন্ধন কর্মসূচি শেষে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি জমা দেন মানববন্ধনকারীরা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আজিজুল হক খান বলেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের স্মারকলিপির দাবিগুলো জেলা প্রশাসকের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে। এর আগে ওজন স্কেল অপসারণসহ হাসপাতালে প্রবেশের জন্য বিকল্প রাস্তা তৈরির বিষয়টি উপজেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভাসহ জেলা প্রশাসনের একাধিক সভায় আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে আসা ঢাকামুখী পণ্যবাহী যানবাহনের ওজন পরিমাপ করতে কয়েক বছর আগে উপজেলা পরিষদের মাঠসংলগ্ন মহাসড়কে ডিজিটাল ওজন স্কেল স্থাপন করে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি)।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন