বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সেকেন্দার আলী বলেন, গতকাল রাতে তিনি কয়ারিয়া বাজারে সেলুনে চুল কাটাচ্ছিলেন। এ সময় শহীদ খানের নেতৃত্বে ১৪ থেকে ১৫ জন সন্ত্রাসী লোহার রড, পাইপ ও লাঠিসোঁটা নিয়ে অতর্কিতে তাঁর ওপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা তাঁর মাথায় আঘাত করে এবং ডান হাতের কবজি ভেঙে দেয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

গৌরনদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক নিখিল চন্দ্র জানান, সেকেন্দার আলীর শরীরে জখমের চিহ্ন রয়েছে। এ ছাড়া তাঁর এক হাতের কবজি ভেঙে গেছে।

জানতে চাইলে শহীদ খান অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, বিএনপি নেতা সেকেন্দার আলী দলীয় লোকজন নিয়ে সভা করছিলেন। এ সময় কয়েকজন যুবক তাঁর ওপর হামলা করে। এ সময় দৌড়ে পালাতে গিয়ে দেয়ালে আঘাত লেগে সেকেন্দার আলীর মাথা ফেটে গেছে।

এ ঘটনায় আজ মঙ্গলবার শহীদ খানসহ ১৫ জনকে আসামি করে থানায় লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করছেন সেকেন্দার আলী। তবে পুলিশের দাবি, এ ঘটনায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি।

জানতে চাইলে গৌরনদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আফজাল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় থানায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়নি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন