default-image

নড়াইল সদর উপজেলায় ছেলে বাড়িতে ফিরে ঘরে ঢুকে দেখেন বাবার গলাকাটা লাশ পড়ে আছে। শুক্রবার উপজেলার তুলারামপুর ইউনিয়নের বেনাহাটি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই ব্যক্তির নাম অরুণ কুমার রায় (৭২)। তিনি খুলনার বটিয়াঘাটা কলেজের সাবেক শিক্ষক। তাঁর স্ত্রী নিভা রানী পাঠক মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) খুলনার উপপরিচালক। এই দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে। ছেলে ইন্দ্রজিৎ রায় প্রকৌশলী এবং মেয়ে ইন্দিরা রায় চিকিৎসক।

পরিবার ও পুলিশ সূত্র জানায়, অরুণ কুমার রায় ওই বাড়িতে একাই থাকতেন। পরিবারের সদস্যরা চাকরিসূত্রে জেলার বাইরে থাকেন। মাঝেমধ্যে তাঁরা বাড়িতে আসেন। সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাড়ির পাশের দোকানে অরুণকে চা খেতে দেখেছেন অনেকে। গতকাল সারা দিন আশপাশের কেউ তাঁকে দেখেননি। রাত সাড়ে আটটার দিকে ছেলে ইন্দ্রজিৎ রায় বাড়িতে ফিরে কলাপসিবল গেট তালা দেওয়া দেখতে পান। বারবার কলবেল চাপলেও ভেতর থেকে সাড়া পাওয়া যাচ্ছিল না। এরপর তিনি অন্য পাশ দিয়ে ঢুকে দোতলায় বাবার থাকার কক্ষের মেঝেতে তাঁর গলাকাটা লাশ দেখতে পান। কক্ষটির দরজা খোলা ছিল। খবর পেয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। লাশের অন্য কোথাও আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

বিজ্ঞাপন

নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, বাসা থেকে কোনো টাকা, দলিল-দস্তাবেজ বা মালামাল খোয়া যায়নি। পূর্বশত্রুতার জের ধরে তাঁকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশের ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন। তাঁর বাসায় পালাক্রমে তিনজন কেয়ারটেকার থাকতেন। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই তিন কেয়ারটেকারকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0