default-image

নোয়াখালী সদর উপজেলার পূর্ব চরমটুয়া ইউনিয়নের একটি গ্রামে ঘরে ঢুকে প্রবাসীর স্ত্রীকে (২২) ধর্ষণের পর স্বর্ণালংকারসহ মালামাল চুরির অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। ঘটনার ১০ দিন পর আজ সোমবার সন্ধ্যায় নির্যাতনের শিকার নারী বাদী হয়ে ৩ জনকে আসামি করে সুধারাম থানায় ওই মামলা করেন। এর আগে এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত মো. শাহীনকে (২৭) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

ওই নারীর অভিযোগের বরাত দিয়ে সুধারাম থানার পুলিশ জানায়, ওই নারীর স্বামী একজন প্রবাসী। গত ২২ অক্টোবর রাত সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার পূর্ব চরমটুয়া ইউনিয়নের গ্রামের বাড়িতে বসতঘরের জানালা খুলে ভেতরে ঢোকেন একই এলাকার মো. শাহীন (২৭) ও তাঁর অপর দুই সহযোগী মো. করিম (৩০) ও মো. হেলাল (৩০)। শাহীন ঘরে ঢোকার পর প্রবাসীর স্ত্রীর মুখ বেঁধে ফেলে দুই সহযোগীর সহযোগিতায় ধর্ষণ করেন।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণের পর অভিযুক্তরা ঘর থেকে দুটি মুঠোফোন সেট ও দেড় ভরি সোনার গয়না লুট করে নিয়ে যান। এরপর কয়েক দিন ধরে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা চলে। মীমাংসা না হওয়ায় প্রবাসীর স্ত্রী বাদী হয়ে সোমবার সন্ধ্যার দিকে সুধারাম থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলায় মো. শাহীন ও তাঁর অপর দুই সহযোগীকে আসামি করা হয়েছে।

জানতে চাইলে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে সুধারাম থানার পরিদর্শক (তদন্ত) টমাস বড়ুয়া প্রথম আলোকে বলেন, ওই নারীর প্রাথমিক অভিযোগ পাওয়ার পরই সোমবার বিকেলে অভিযুক্ত শাহীনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় ধর্ষণ ও চুরির মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত শাহীনকে মঙ্গলবার আদালতে পাঠানো হবে। এ ছাড়া বাকি দুই আসামিকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা অব্যাহত আছে।

মন্তব্য পড়ুন 0