বিজ্ঞাপন

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে বুধবার সকালে জোয়ারের সময় পায়রা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে মির্জাগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৬৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। জোয়ারের পানির চাপে বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি ঘরবাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জোয়ারের পানিতে এখন পর্যন্ত জেলার কলাপাড়া, রাঙ্গাবালী, দশমিনা ও মির্জাগঞ্জ উপজেলার ১৪১টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে আজ বুধবার সকাল থেকে গলাচিপার রতনদী তালতলী ইউনিয়নের পাউবোর আগুনমুখা নদীর পাড়ের ৫৫/২ পোল্ডারের বন্যাতলী পয়েন্ট জোয়ারের পানির চাপে ভেঙে গেছে। বাঁধের ভেঙে যাওয়া অংশ দিয়ে পানি প্রবেশ করে প্লাবিত হয়েছে সেখানকার চারটি গ্রাম।

default-image

গলাচিপা উপজেলার কলাগাছিয়া ইউনিয়নের কলাগাছিয়া সিকদার বাড়িসংলগ্ন এলাকার বাঁধ বিধ্বস্ত হয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে ছয়টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়া গোলাখালী ইউনিয়নের দক্ষিণ–পূর্ব গোলখালী, চর কাজল ইউনিয়নের বড় কাজল, ছোট কাজলসহ ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

পানপট্টি ইউনিয়নের বোটস্কুল এলাকার বাঁধ এখন চরম ঝুঁকিতে রয়েছে। আগুনমুখার বিশাল বিশাল ঢেউ আছড়ে পড়ায় বাঁধের অর্ধেক অংশ নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। ইউনিয়নের আগুনমুখা নদীর পাড়ে গুপ্তের হাওলা গ্রামের জেলে আইয়ুব মোল্লা, তাঁর স্ত্রী ঝুমরি বিবি সন্তানদের নিয়ে কোমরপানি ভেঙে বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছেন।
ঝুমুর বেগম বলেন, মঙ্গলবার সকালে জোয়ারে তাঁর ঘরের ভিটা পর্যন্ত পানি উঠেছিল।

default-image

সন্ধ্যার জোয়ারে ঘরের মধ্যে পানি প্রবেশ করে। সারা রাত ঘরে বসেই আতঙ্ক নিয়ে রাত কাটিয়েছেন তাঁরা। কিন্তু সকালে জোয়ারের পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে আগুনমুখা নদীর ঢেউয়ের আঘাতে ঘরের ভিটা ধসে যেতে শুরু করে। এরপরই তিনি স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে নৌকায় মালামাল তুলে বাঁধের ওপর আশ্রয় নিয়েছেন তাঁরা।

 গলাচিপা উপজেলার চরকাজল, চর বিশ্বাস, কলাগাছিয়া, চিকনিকান্দি, পানপট্টি, গলাচিপা ইউনিয়নের দুই হাজার মিটার বাঁধের অস্তিত্ব হুমকির মুখে রয়েছে। এ বিষয়ে গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশীষ কুমার জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্যসহায়তা দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পাউবোকে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ রক্ষার ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।  

জেলায় আট উপজেলার ৩০টি পয়েন্টের অন্তত তিন কিলোমিটার বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢুকে পড়েছে। পাউবো থেকে জিও ব্যাগসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ রক্ষায় কাজ করা হচ্ছে।
মো. সালেহ আহমেদ, নির্বাহী প্রকৌশলী, পানি উন্নয়ন বোর্ড, পটুয়াখালী কার্যালয়

এ বিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পটুয়াখালী কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সালেহ আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, জেলায় আট উপজেলার ৩০টি পয়েন্টের অন্তত তিন কিলোমিটার বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি ঢুকে পড়েছে। পাউবো থেকে জিও ব্যাগসহ বিভিন্ন উপকরণ দিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ রক্ষায় কাজ করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন