বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাতক্ষীরার আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জুলফিকার আলী বলেন, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ শক্তি হারিয়ে বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এর প্রভাবে সাতক্ষীরার উপকূলীয় অঞ্চলে গতকাল দিনে থেমে থেমে বৃষ্টি হলেও সন্ধ্যার পর থেকে মাঝারি বৃষ্টি শুরু হয়। আজ সোমবার সকাল থেকে একই ধরায় বৃষ্টি অব্যাহত রয়েছে। গতকাল সকাল ছয়টা থেকে আজ সকাল ছয়টা পর্যন্ত জেলায় ৩১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। শ্যামনগর ও আশাশুনিতে বৃষ্টির সঙ্গে ঝোড়ো বাতাস বইছে। আজও এভাবে বৃষ্টি ও বাতাস থাকবে। আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। উপকূলীয় অঞ্চলে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত জারি রয়েছে। সুন্দরবনসংলগ্ন নদ-নদী থেকে জেলেদের নিরাপদে থাকতে বলা হয়েছে।

শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম বলেন, প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে এই দ্বীপের মানুষ বেঁচে আছে। ঝড় তাদের কাবু করতে না পারলেও জলোচ্ছ্বাস তাদের কাবু করে ফেলে। জোয়ারের পানি বেশি বাড়লে ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে।

শ্যামনগরের বুড়িগোয়ালিনী ইউপির চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মণ্ডল বলেন, শনিবার থেকেই উপকূলীয় অঞ্চলে বৃষ্টি হচ্ছে। আর গতকাল রাত থেকে হালকা বাতাস বাইছে। নদ-নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে কিছুটা বেড়েছে। এ এলাকার মানুষ জরাজীর্ণ বেড়িবাঁধ নিয়ে আতঙ্কের মধ্যে আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন