বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কর্মশালায় বক্তারা বলেন, টেকসই উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা নিশ্চিত করতে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। এ জন্য তরুণ প্রজন্মকে গবেষণায় আকৃষ্ট করতে হবে। উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে উদ্ভূত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হবে। মানুষের জীবনকে সুন্দর ও সহজ করতে নতুন নতুন উদ্ভাবন ও গবেষণা করতে হবে।

বক্তারা আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেই পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পথ প্রদর্শনে নেতৃত্ব দিতে হবে। চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের কারণে শ্রমঘন শিল্পের পরিবর্তে প্রযুক্তিনির্ভর শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। শিল্পবিপ্লবে চলমান অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা কৃষি, পোশাকশিল্প, চামড়া, ফার্নিচার ও পর্যটন খাতে ব্যাপক বেকারত্বের সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। ওই শিল্পবিপ্লব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তরুণ প্রজন্মকে বৈশ্বিক মানদণ্ডে গড়ে তুলে দক্ষ মানবসম্পদে পরিণত করতে হবে। তাহলেই চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে ভালো অবস্থানে থাকতে পারবে।

কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক মুহাম্মদ আলমগীর। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মাহমুদ হোসেনের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এ কিউ এম মাহবুব, শেখ হাসিনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. মাহবুবুর রহমান, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ–উপাচার্য মো. মাহবুবুর রহমান প্রমুখ। কর্মশালায় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকেরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন