বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ছাত্রলীগ সূত্র জানায়, কিছুদিন ধরে বিজয়ের নেতৃত্ব দিচ্ছেন শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইলিয়াস ও অর্থ সম্পাদক জাহেদুল আওয়াল। তবে বিজয়ের কর্মীদের একটি অংশ তাঁদের নেতৃত্বের প্রতি অনাস্থা আনেন। বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন সময় পক্ষ-বিপক্ষের নেতা-কর্মীদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা জানান, গতকাল রাতে আলাওল হলে ছিলেন বিজয়ের একাংশের জাহিদ চৌধুরী। বিজয়ের অপর অংশের কর্মীরা সেখানে গিয়ে জাহিদকে মারধর করেন। খবর পেয়ে মুজাহিদ বেশ কয়েকজন কর্মীকে সঙ্গে নিয়ে আলাওল হলে যান। সেখানে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষকালে জাহিদ ও মুজাহিদকে কুপিয়ে জখম করা হয়। পরে কর্মীরা তাঁদের দুজনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়ে যান। আর প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা এসে দুই অংশের নেতা-কর্মীদের সরিয়ে দেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের রাজনীতি মূলত দুটি পক্ষে বিভক্ত। এক পক্ষের নেতা-কর্মীরা শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত। অন্য পক্ষ সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী। ২টি পক্ষ আবার ১১টি উপপক্ষে বিভক্ত।

শিক্ষা উপমন্ত্রীর অনুসারীর মধ্যে রয়েছে চুজ ফ্রেন্ডস উইথ কেয়ার ও বিজয়। আর সাবেক সিটি মেয়রের অনুসারীরা হলো সিক্সটি নাইন, ভার্সিটি এক্সপ্রেস, উল্কা, বাংলার মুখ, কনকর্ড প্রভৃতি। এসব উপপক্ষের মধ্যে মাঝেমধ্যে সংঘর্ষ-মারামারির ঘটনা ঘটে।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিজয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল দেখা দিয়েছে। গতকাল রাতের ঘটনা তার প্রমাণ। নিজেরাই নিজেদের কর্মীদের কুপিয়ে জখম করেছে। যাঁরা এসব ঘটনায় জড়িত, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হোক।’

বিজয়ের নেতা ইলিয়াছ প্রথম আলোকে বলেন, ‘জাহিদের সঙ্গে তাঁর বন্ধুদের ভুল বোঝাবুঝি হয়। তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্তু মুজাহিদ শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তিনি বিভিন্ন সময় সমস্যা সৃষ্টি করেছেন। তাই গতকাল রাতে তাঁকে ট্রিট দেওয়া হয়েছে। যে-ই ছাত্রলীগের মধ্যে থেকে শিবিরের কার্যক্রম পরিচালনা করবেন, তাঁকেই হিট করা হবে।’

ইলিয়াছবিরোধী অংশের কর্মী আল আমিন প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিজয়ের নেতা-কর্মীরা দুই অংশে ভাগ হয়ে গেছে। এ কারণেই মূলত সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। গতকাল রাতের অন্ধকারে জাহিদের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়েছে। মুজাহিদকে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। এটি হয়েছে ইলিয়াছ ও জাহেদুলের নির্দেশে। এ ঘটনার বিচার চাই।’

বিজয়ের নেতা-কর্মীদের দুই অংশে বিভক্ত হয়ে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন ইলিয়াছ।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া বলেন, ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি এখন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে। নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে সমস্যা হয়েছিল। প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তদন্ত করে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন