বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভুক্তভোগী সদর ইউনিয়নের বালিয়াডাঙ্গী গ্রামের দুবাইপ্রবাসী উজ্জ্বল ব্যাপারীর (২৮) ভাষ্য, গতকাল বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে তিনি সদর বাজারের গার্লস স্কুল সড়কে অবস্থিত আজম স্টোরে মালামাল কিনছিলেন। কেনাকাটার সময় তিনি দোকানের সামনে রাখা একটি টুলে বসা ছিলেন। হঠাৎ এসি ল্যান্ড মো. জিল্লুর রহমান দোকানের সামনে এসে গাড়ি থামিয়ে একটি থাপ্পড় দেন। থাপ্পড় মারার কারণ জানতে চাইলে ওই কর্মকর্তা তাঁকে বলেন, কেন তিনি তাঁকে দেখে দাঁড়াননি। এরপর দোকানের সামনে চৌকিতে রাখা আলুর ঝাঁকা ফেলে দেন বলে উজ্জ্বলের দাবি। তিনি ঘটনাটি ডিসিকে জানিয়েছেন।

ওই দোকানের মালিক মো. আজমের (২৪) ভাষ্য, সন্ধ্যার দিকে দুটি গাড়ি এসে তাঁর দোকানের সামনে থামে। একটি গাড়ি থেকে এসি ল্যান্ড নেমে কোনো কারণ ছাড়াই এক ক্রেতাকে থাপ্পড় মারেন। পরে তিনি আলুভর্তি ঝাঁকা ফেলে দেন। পেঁয়াজের ঝাঁকাও ফেলে দিতে উদ্যত হন। তিনি বলেন, ‘প্রশাসনের লোক হোক কিংবা আইনের লোক; কাউকে কোনো কারণ ছাড়া কিছু জিজ্ঞেস না করে কেন মারবে?—এটা আমার বোধগম্য হয়নি।’

ঘটনার আরেক প্রত্যক্ষদর্শী দোকানি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘গাড়ি থেকে নেমে এক ব্যক্তি দোকানে বসা এক ব্যক্তিকে থাপ্পড় দেন। দোকানের আলু ফেলে দেন। পরে জেনেছি উনি এই উপজেলার এসি ল্যান্ড।’ এর সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘এসি ল্যান্ড এক দোকানের একটি ব্যানার টেনে খুলে রাস্তার ওপর ফেলে দেন। আরেক দোকানদারের গ্যাসের সিলিন্ডার ফেলে দেন। এসব দেখে উপস্থিত সবাই হতবাক হয়ে যান। আমরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই ঘটনা ঘটে যায়। কথা নাই, বার্তা নাই, একজন এসে একজনকে থাপ্পড় মেরে দিল! এটা কেমন ঘটনা?’

বিএসডাঙ্গী গ্রামের খলিল মণ্ডল নামের আরেক ভুক্তভোগীর ভাষ্য, ‘সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে অসুস্থ স্ত্রীর জন্য ওষুধ নিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলাম। হঠাৎ করেই পেছন থেকে এসি ল্যান্ড এসে থাপ্পড় দেন। থাপ্পড় মারার কারণ জানতে চাইলে তাঁর সঙ্গে থাকা লোকজন ধমক দেন।’

অভিযোগের বিষয়ে এসি ল্যান্ড মো. জিল্লুর রহমান আজ মঙ্গলবার বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ‘সদর বাজার এলাকায় ইউপি নির্বাচন উপলক্ষে দুই বিবদমান চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকেরা মিছিল বের করেছিলেন। খবর পেয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে মিছিলে অংশ নেওয়া ব্যক্তিরা যে যেদিকে পারেন, পালিয়ে যান।’ ‘বাজারে কাউকে চড়-থাপ্পড় মারা হয়নি’ দাবি করে এই কর্মকর্তা বলেন, নির্বাচনী পরিবেশ ঘোলা করার জন্য এ-জাতীয় মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে।

জেলা প্রশাসক অতুল সরকার প্রথম আলোকে বলেন, তিনি এসি ল্যান্ডের থাপ্পড় মারাসংক্রান্ত একটি অভিযোগ মুঠোফোনে পেয়েছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখার জন্য ইউএনও তানজিলা কবিরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তৃতীয় পর্যায়ে চরভদ্রাসন উপজেলার সদর ইউনিয়নসহ তিনটি ইউপি নির্বাচন আগামী ২৮ নভেম্বর।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন