বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে জুলহাস মোল্লা দাবি করেন, অগঠনতান্ত্রিকভাবে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এর আগে এ–সংক্রান্ত সতর্কীকরণ বা কারণ দর্শানোর কোনো নোটিশ দেওয়া হয়নি। এ ধরনের অভিযোগের কোনো ভিত্তি নেই।

গোয়ালন্দ উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সদস্য ইউনুস মোল্লা বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের ভিশন বাস্তবায়নে জুলহাস মোল্লাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। যুবলীগ করে কেউ কোনো অন্যায় কাজে জড়িত থাকতে পারবেন না।

তবে জুলহাস মোল্লার ভাষ্য, ‘উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইউনুস মোল্লা জলমহালের নামে আমার কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন। আরও কয়েকজনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। ওই টাকা চাইতে গেলে না দিয়ে টালবাহানা করছেন। আমি যাতে আর টাকা না চাই, এ কারণে তিনি এসব অভিযোগ এনেছেন।’ আর টাকা নেওয়ার অভিযোগের বিষয়ে ইউনুস মোল্লার ভাষ্য, বহিষ্কার হলে নানা ধরনের কথা উঠবে, এটাই স্বাভাবিক।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন