বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

যুবদল নেতা-কর্মীরা জানান, খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা ও মুক্তির দাবিতে ১৭ জানুয়ারি বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচি সফল করতে এই কর্মিসভার ঘোষণা দিয়েছিল যুবদল। এ সভায় যুবদলের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি গোলাম রাব্বানী, সহসাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ও ওবাইদুর রহমান, সহসাংগঠনিক সম্পাদক মাসুম-উল হক এবং জেলার প্রায় ৩৫ জন নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, সভা শুরুর আগেই বেলা একটার দিকে প্রায় ৫০ জন পুলিশ এসে তাঁদের সভা করতে নিষেধ করেন। এ সময় পুলিশ সেখান থেকে সভার ব্যানার ও ১০টি চেয়ার নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় পুলিশ সদস্যরা কেন্দ্রীয় ও জেলার নেতাদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন বলে তিনি দাবি করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মিন্টু রহমান প্রথম আলোকে বলেন, যুবদলের নেতা-কর্মীরা অনুমতি ছাড়া একটি গ্যারেজের ভেতর গোপন সভা করছিলেন। অনুমতি না থাকায় তাঁদের সভা করতে দেওয়া হয়নি। এ ছাড়া এখন করোনার সংক্রমণ বেড়েছে, এ জন্যও তাঁদের সভা করতে দেওয়া হয়নি। এদিকে পুলিশের অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগটি মিন্টু রহমান অস্বীকার করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন