default-image

চাকরি দেওয়ার কথা বলে যশোর সদর উপজেলায় তিনজন মিলে এক তরুণীকে (২৮) ধর্ষণ করেছেন অভিযোগে মামলা হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে ওই তরুণী বাদী হয়ে যশোর কোতোয়ালি থানায় ধর্ষণ মামলা করেন। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনজন মিলে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেছেন বলে মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

মামলার তিন আসামি হলেন খুলনার ফুলতলা উপজেলার তত্ত্বীপুর গ্রামের মানিক কুণ্ডু (৩৭), আলকা গ্রামের আনোয়ার হোসেন (৩০) ও বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার হিজলা গ্রামের রিয়াজুল (৩৫)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ওই তরুণীর সঙ্গে তাঁর স্বামীর ছাড়াছাড়ি হয়েছে। মানিক কুণ্ডু বিভিন্ন সময় তাঁকে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। চাকরি দেওয়ার কথা বলে গত শুক্রবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে তরুণীকে অভয়নগর থেকে যশোর শহরে নিয়ে যান মানিক। সন্ধ্যায় ওই তরুণী ও মানিক যশোর শহরের মনিহার মোড়ে পৌঁছান। সেখানে মানিকের অপর দুই সহযোগী আনোয়ার ও রিয়াজুল আসেন। পরে চারজন মিলে একটি হোটেলে নাশতা করেন। নাশতা শেষে তরুণীকে যশোর-মাগুরা মহাসড়কের প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ের বিপরীতে নির্মাণাধীন ভবনে নিয়ে তিনজন মিলে ধর্ষণ করেন। এ সময় তরুণীর চিৎকারে পথচারীরা চলে এলে তাঁরা পালিয়ে যান। পরে পথচারীরা তাঁকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান বলেন, তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে। যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে তরুণীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন