বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেন মৎস্য চাষি সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। তিনি বলেন, ‘সমাজসেবা অধিদপ্তরের অনুমতি নিয়ে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্তির জন্য জনপ্রতি ২০০ টাকা করে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া কোনো টাকা নেওয়া হয়নি। আমার বিরুদ্ধে যে যা বলে বলুক, এতে আমার কিছু হবে না।’

প্রকল্পসংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দেশীয় প্রজাতির মাছ ও শামুক সংরক্ষণের উদ্দেশে ২০১৮ সালে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। মানববন্ধনে কোটালীপাড়া মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি চিতশী গ্রামের মো. রফিকুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, ওই প্রকল্পের আওতায় ২০১৮ সাল থেকে গোপালগঞ্জসহ আশপাশের ১০টি জেলার ৪৯টি উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে ১০টি করে কমিটি করা হয়। এরপর কমিটির সদস্যদের অনেককে চাকরি ও কাজ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে জনপ্রতি ৫ হাজার থেকে ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। এ ছাড়া কমিটির সদস্য ফি বাবদ বেকার যুবক, মৎস্য চাষি ও মৎস্যজীবীদের কাছ থেকে জনপ্রতি ২৫০ থেকে ৫ হাজার টাকা করে নেওয়া হয়। এভাবে প্রকল্পের আওতাভুক্ত প্রতিটি কমিটি থেকে ১৫ হাজার ৩০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেন তিনি।

গোপালগঞ্জ পৌর মৎস্যজীবী সমিতির সম্পাদক আশিকুর রহমান খান বলেন, সমিতির গঠনতন্ত্র, লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সম্পর্কে কিছু না জানিয়ে ৪৯টি উপজেলা থেকে সদস্যদের কাছ থেকে অন্তত এক কোটি টাকা হাতিয়ে নেন জাহাঙ্গীর হোসেন। এখন পর্যন্ত সমিতির কোনো বার্ষিক সাধারণ সভা করা হয়নি। সমিতিটি সমাজসেবা অধিদপ্তর নিবন্ধিত। অথচ এখন পর্যন্ত বার্ষিক অডিট, সমিতির ফি এবং কমিটি গঠন বাবদ গ্রহণ করা টাকার ব্যাংক হিসাব সদস্যদের কাছে উপস্থাপন করা হয়নি। এসব বিষয়ে কোনো সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেনকে প্রশ্ন করলে সমিতি থেকে তাঁদের সদস্যপদ বাতিলের হুমকি দেন তিনি। চাকরির বিষয়ে জানতে চাইলে দেবেন বলে আশ্বাস দিতে থাকেন।

মানববন্ধনে জাহাঙ্গীর হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিসহ তাঁদের কাছ থেকে চাকরি ও কাজ দেওয়ার কথা বলে আত্মসাৎ করা অর্থ ফেরত দেওয়ার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভুক্তভোগীরা।

ওই প্রকল্পের পরিচালক আশিকুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাছচাষিদের থেকে বিভিন্ন অজুহাতে টাকা নেওয়ার প্রতিবাদে মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের বিরুদ্ধে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এখতিয়ার না থাকায় আমরা তাঁর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারিনি।’

জাহাঙ্গীর হোসেন এই প্রকল্পের কাজ আইনবহির্ভূতভাবে তাঁকে পাইয়ে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করেছিলেন বলেও অভিযোগ করেন আশিকুর রহমান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন