বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নিহত সেলিমের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই সেলিমের বাবা আবুল বাদশা ও চাচা মো. ইলিয়াসের মধ্যে সম্পত্তি ভাগাভাগি নিয়ে বিরোধ চলছিল। গতকাল দুপুরে আবুল বাদশা ও মো. ইলিয়াসের পরিবারের সদস্যরা বিরোধ সমাধানের জন্য আলোচনায় বসেছিলেন। এ সময় তাঁদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। বিকেল পাঁচটার দিকে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। একপর্যায়ে ইলিয়াস তাঁর ভাতিজা সেলিমের পিঠের পাশে ছুরিকাঘাত করেন। আহত অবস্থায় দ্রুত সেলিমকে প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকার নিউ লাইফ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আজ ভোর পাঁচটার দিকে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

নরসিংদী সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) সৈয়দ আমীরুল হক বলেন, ‘পিঠের এক পাশে ছুরিকাঘাতে আহত যুবককে আমাদের হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। আমরা তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজধানী ঢাকায় পাঠিয়েছি।’

চর আড়ালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান সরকার জানান, জমিসংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরেই চাচার ছুরিকাঘাতে ভাতিজার মৃত্যু হয়েছে। ঘটনা শুনেই তিনি ওই বাড়িতে গিয়ে জানতে পারেন সেলিমের পিঠের এক পাশে ছুরিকাঘাতে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছিল। তাঁর লাশ বাড়িতে নিয়ে আসার প্রস্তুতি নিচ্ছেন স্বজনেরা।

এ ব্যাপারে রায়পুরার আমিরগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক আতিকুর রহমান ভূঁইয়া জানান, জমিসংক্রান্ত দ্বন্দ্বের জেরে আপন চাচার ছুরিকাঘাতে আহত হওয়ার পরদিন প্রবাসফেরত সেলিম মারা গেছেন। এ ঘটনায় তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন