বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সাধারণ চা–শ্রমিকদের আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ চা-শ্রমিক ইউনিয়নে মনু-দলই ভ্যালির কার্যকরী কমিটির সভাপতি ধনা বাউরি, সাধারণ সম্পাদক নির্মল দাশ পাইনকা, মাধবপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পুষ্প কুমার কানু, নারীনেত্রী গিতা রানী কানু, গায়ত্রী রাজভর, চা–ছাত্রনেতা মোহন রবিদাস, প্রদীপ পাল, শ্রীগোবিন্দপুর চা-বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি মিলন নায়েক প্রমুখ।

default-image

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মহসীন টি কোম্পানির শ্রীগোবিন্দপুর চা-বাগানের শ্রমিক শ্রীজনম ভর ব্যবস্থাপক প্রশান্ত সরকারের কাছে মৌখিকভাবে অনুমতি নিয়ে ধারদেনা করে দুই লাখ টাকা ব্যয়ে ছোট পাকা ঘরটি নির্মাণ করেছেন। কিন্তু তাঁকে না জানিয়ে বিনা নোটিশে তাঁর ঘরটি ভেঙে দেওয়া হলো।

এমন কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বক্তারা দ্রুত এই শ্রমিকের ঘর তৈরি ও তাঁকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানান। না হলে আগামীতে আরও বড় আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন তাঁরা।

বক্তারা অভিযোগ করেন, চা–বাগানের মালিক একজন প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি। ব্যবস্থাপক পূর্বে ঘর নির্মাণের মৌখিক নির্দেশ দিলেও এখন মালিকের ভয়ে ঘর নির্মাণে কোনো নির্দেশ দেননি বলে দাবি করছেন।

শ্রমিককে ঘর নির্মাণের কোনো মৌখিক অনুমতি দেওয়া হয়নি বলে দাবি করেন শ্রীগোবিন্দপুর চা–বাগানের ব্যবস্থাপক প্রশান্ত সরকার। তিনি বলেন, ‘শুক্রবার সন্ধ্যায় তাঁর (শ্রীজনম ভর) ঘরে গিয়ে আগাম বলা হয়েছে ঘর ভাঙার বিষয়টি। তা ছাড়া এটি দোকানঘর নির্মাণ করা হয়েছে। চা-বাগানে দোকানঘর নির্মাণের কোনো সুযোগ নেই।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন