default-image

রাজশাহীর চারঘাট পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। এ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র দখলের আশঙ্কায় বিএনপির মেয়র প্রার্থী জাকিরুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলন করেছেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সমর্থকেরা প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছেন, তাঁরা ভোটকেন্দ্র দখল করে নেবেন। তাঁরা বিভিন্ন পথসভায় হুমকি দিচ্ছেন। এ জন্য তিনি ও তাঁর পরিবার নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিন পার করছেন।

শুক্রবার বেলা সাড়ে তিনটায় রাজশাহী নগরের মালোপড়া এলাকায় জেলা ও মহানগর বিএনপির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন জাকিরুল ইসলাম। এ সময় সেখানে আরও উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান, মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ চাঁদ, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম মোস্তফা প্রমুখ।

বিএনপির মেয়র প্রার্থী জাকিরুল ইসলাম বলেন, ১৩ ফেব্রুয়ারি তিনি তাঁর মায়ের কবর জিয়ারত করে নির্বাচনী প্রচারের উদ্দেশ্যে চারঘাট বাজারের দিকে রওনা দিলে আগে থেকে অবস্থান নেওয়া আওয়ামী লীগের লোকজন তাঁকে বাধা দেন। একপর্যায়ে তাঁরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাঁর কর্মী-সমর্থকদের ওপরে হামলা চালান। ককটেল নিক্ষেপ করে তাঁর কর্মী-সমর্থকদের ছত্রভঙ্গ করে দেন। পরে বিএনপির লোকজনকেই আসামি করে দুটি মামলা দেওয়া হয়েছে। একটি মামলা বিস্ফোরক আইনে করা হয়েছে। এরপর থেকে তাঁর সব নির্বাচনী কার্যক্রমে তাঁরা বাধা দিয়ে যাচ্ছেন। প্রচারকাজে নিয়োজিত মাইক ভেঙে ফেলা হচ্ছে। পোস্টার লাগানোর পর, তা ছিঁড়ে পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। নারী কর্মীদের লিফলেট বিতরণের সময় শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা হচ্ছে ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হচ্ছে। পুলিশ ও গোয়েন্দা বাহিনীর লোক দিয়ে মিথ্যা মামলা ও গ্রেপ্তারের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। এসব বিষয়ে লিখিত ও মৌখিকভাবে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

লিখিত বক্তব্য শেষ করে জাকিরুল ইসলাম বলেন, কিছুক্ষণ আগে তিনি খবর পেয়েছেন, চারঘাটে ঝিকরা হাইস্কুলে ১০ জন প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে ডাকা হয়েছে। ভোটারদের কাছ থেকে সিল নিয়ে তাঁরা ভোট দিয়ে দেবেন। চারঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান এভাবে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাকে প্রভাবিত করে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে বিজয়ী ঘোষণা করবেন। এ খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তিনি সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরে জানিয়েছেন। নিরাপদে কর্মী-সমর্থকদের নির্বাচনী দায়িত্ব পালন ও ভোটারদের নির্বিঘ্ন ভোট নিশ্চিত করার জন্য নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের কাছে দাবিও জানান তিনি।

কীভাবে ভোট হচ্ছে, তা দেখার জন্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের রাজশাহীতে আসার আহ্বান জানান সাবেক সিটি মেয়র মিজানুর রহমান। তিনি আরও বলেন, ওবায়দুল কাদের সব সময় ঘরে বসে বিএনপির নামে উল্টাপাল্টা কথাবার্তা বলেন। তিনি তাঁকে অনুরোধ জানান, রাজশাহীতে এসে যেন দেখেন, কীভাবে ভোট হচ্ছে।

জাকিরুল ইসলামের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে চারঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা ভোটকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য এসব অভিযোগ করছেন। তাঁদের এখন কোনো কেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট দেওয়ার মতো লোক নেই। ঝিকরা হাইস্কুলে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের ডাকার বিষয়ে জাকিরুল ইসলাম মিথ্যা ও বানোয়াট অভিযোগ করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন