default-image

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলায় জেলেদের জালে ধরা পড়েছে চার কেজির বেশি ওজনের সুস্বাদু রিটা মাছ। মঙ্গলবার ভোরের দিকে দৌলতদিয়া ৬ নম্বর ফেরিঘাটসংলগ্ন ছাত্তার মেম্বারপাড়া এলাকায় পদ্মা নদীতে মাছটি ধরা পড়ে।

এত বড় রিটা মাছ এ মৌসুমে প্রথম ধরা পড়ল। জেলেদের কাছ থেকে মাছটি ১০ হাজার ৫০০ টাকায় কিনে নেন স্থানীয় এক মৎস্য ব্যবসায়ী। পরে তাঁর কাছ থেকে ১১ হাজার ৩৪০ টাকায় মাছটি কিনেছেন ঝিনাইদহের এক ব্যক্তি।

দৌলতদিয়া ঘাটের মৎস্য ব্যবসায়ী ও জেলেদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মানিকগঞ্জের জাফরগঞ্জ এলাকার জেলে গোপাল হালদার কয়েকজনকে নিয়ে সোমবার দিবাগত রাতে পদ্মা নদীতে মাছ ধরতে নামেন। প্রথম দফায় নদীতে জাল ফেলে সামান্য কিছু মাছ পান। দ্বিতীয়বার ফেলা জাল মঙ্গলবার ভোরে নৌকায় তোলেন। এ সময় দেখতে পান, অন্যান্য মাছের সঙ্গে জালে বড় আকারের ওই রিটা মাছ আটকা পড়েছে। মাছটি বিক্রির জন্য ভোরবেলায় দৌলতদিয়া ঘাটের মাছের বাজারে নিয়ে আসেন। সেখানে নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে মৎস্য ব্যবসায়ী মো. চান্দু মোল্লা মাছটি কিনে নেন।

চান্দু মোল্লা বলেন, মাছটির ওজন প্রায় ৪ কেজি ২০০ গ্রাম। জেলেদের কাছ থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকা কেজি দরে তিনি মাছটি কেনেন। পরে মাছটি ফেরিঘাটের পন্টুনের সঙ্গে নদীর পানিতে রশি দিয়ে বেঁধে ভাসিয়ে রাখা হয়। বড় একটি রিটা মাছ ধরা পড়ার খবর অনেকেই জেনে যান। মুঠোফোনে যোগাযোগ করেন ঝিনাইদহের একজন জ্বালানি ব্যবসায়ী। তিনি ২৭০০ টাকা কেজি দরে মাছটি কিনতে আগ্রহ দেখান। দুপুরেই তাঁর বাড়িতে মাছটি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. রেজাউল শরীফ বলেন, মিঠাপানির সুস্বাদু মাছ রিটা। দৌলতদিয়ায় চার কেজি ২০০ গ্রাম ওজনের রিটা মাছ ধরা পড়ার খবরটি তিনি শুনেছেন। রিটাসহ এ–জাতীয় মাছগুলো দিনে দিনে হারিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পদ্মা নদীতে অভয়াশ্রম করতে পারলে আগামী প্রজন্মের জন্য এসব মাছ ধরে রাখা যেত।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0