default-image

চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক কুমার ঘটক, ইতিহাসবিদ অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, স্যার যদুনাথ সরকার ও কবি রজনীকান্ত সেনের বাড়ি সংরক্ষণ করার পদক্ষেপ নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সংস্কৃতিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজশাহীতে সাংস্কৃতিক কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা জানান। সকালে রাজশাহী সার্কিট হাউসের সম্মেলনকক্ষে মতবিনিময় সভা হয়।
রাজশাহী নগরে এই চার খ্যাতিমান ব্যক্তির স্মৃতিবিজড়িত বাড়ি ছিল। এর মধ্যে শুধু অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়ের ভিটায় নতুন করে স্থাপনা করা হয়েছে। অপর তিনটির অস্তিত্ব রয়েছে।
মতবিনিময় সভায় প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, ‘রাজশাহীর সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ঋত্বিক কুমার ঘটক, অক্ষয় কুমার মৈত্রেয়, কবি রজনীকান্ত সেন ও স্যার যদুনাথ সরকারের বাড়ির সংরক্ষণের কথা বারবার শুনেছি। বাড়িগুলো যেন দ্রুত সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়, সে জন্য সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।’
এই সময় রাজশাহীর সাংস্কৃতিক অঙ্গনের সার্বিক খোঁজখবর নেন প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, রাজশাহী জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে একটি মুক্তমঞ্চ করার জন্য এখানকার সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বরা বারবার বলে আসছেন। খুব অল্প সময়ের মধ্যে এই মুক্তমঞ্চ যেন হয়, সেটির ব্যবস্থাও করা হবে।

বিজ্ঞাপন

মতবিনিময় সভায় রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের সাংসদ মনসুর রহমান, ঋত্বিক ঘটক ফিল্ম সোসাইটির সভাপতি এফ এম এ জাহিদ, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হোসেন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের জেলার সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার ঘোষ, গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য কামারুল্লাহ সরকার, বাংলাদেশ যাত্রা ফেডারেশনের জেলার সভাপতি গোলাম মোর্শেদ, রাজশাহী আবৃত্তি চর্চা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য কামারুল্লাহ সরকার জানান, প্রতিমন্ত্রীর কাছে তাঁরা রাজশাহীর খ্যাতিমান ব্যক্তিদের স্মৃতি সংরক্ষণের বিষয়টি তুলে ধরেন। মন্ত্রী আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, ঋত্বিক ঘটকের বাড়ি সংরক্ষণের জন্য তিন লাখ টাকা পর্যন্ত জেলা প্রশাসক খরচ করতে পারবে। এর বেশি প্রয়োজন হলে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় দেবে।

মন্তব্য করুন