বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে পাটুরিয়া প্রান্তে তিনটি ও দৌলতদিয়া প্রান্তে ১১টি ফেরি যানবাহন ও যাত্রী নিয়ে পন্টুনে অবস্থান করে। তবে কুয়াশা কমে এলে আজ সকাল সাতটা থেকে ফের ফেরি চলাচল শুরু হয়। এ সময় মাঝনদীতে নোঙর করা ফেরিটি যাত্রী ও যানবাহন নিয়ে গন্তব্যের উদ্দেশে যাত্রা করে। পাটুরিয়া ও দৌলতদিয়া প্রান্তে যাত্রী ও যানবাহনবোঝাই করা পন্টুনে থাকা ফেরিগুলোও গন্তব্যে রওনা দেয়।

জেলা ট্রাফিক পুলিশের পরিদর্শক মেরাজ হোসেন বলেন, ফেরি বন্ধ থাকায় ঘাট এলাকায় যানবাহনের চাপ বেড়েছে। আজ সকাল ১০টার দিকে পাটুরিয়া প্রান্তে দেড় শতাধিক যাত্রীবাহী বাস, দুই শতাধিক ব্যক্তিগত গাড়ি ও চার শতাধিক পণ্যবাহী গাড়ি আটকা পড়ে।

কুয়াশায় ফেরি বন্ধের পাশাপাশি সাপ্তাহিক ছুটি থাকায় দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার মানুষ পাটুরিয়া ঘাট হয়ে বাড়িতে যাচ্ছেন। এতে পাটুরিয়ায় যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়। পারাপার বন্ধ থাকায় দীর্ঘ সময় ঘাট এলাকায় খোলা জায়গায় কনকনে শীতের মধ্যে যাত্রী ও যানবাহনের শ্রমিকেরা চরম ভোগান্তিতে পড়েন। বিশেষ করে নারী, বৃদ্ধ ও শিশুদের ভোগান্তি বেশি। শৌচাগারের ও খাবার হোটেলের অভাব ভোগান্তির মাত্র আরও বাড়িয়ে তোলে।

একে ট্রাভেলস পরিবহনের যশোরগামী একটি বাসে করে গ্রামের বাড়ি যাচ্ছেন ঢাকায় একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী এমদাদুল হক (৫০)। সকাল নয়টায় পাটুরিয়া ঘাটের অদূরে আরসিএল মোড় এলাকায় অন্যান্য যানবাহনের সঙ্গে তাঁদের বাসটিও দীর্ঘ সারিতে আটকা পড়ে। তিনি বলেন, ‘ঘাটে আসার পর থেকেই আটকা আছি। এক ঘণ্টা হয়ে গেলেও ফেরির টিকিট এখনো মেলেনি। ঘাটের এই ভোগান্তি আর শেষ হলো না!’

পাটুরিয়া তিন নম্বর ঘাট এলাকায় আটকে থাকা সার্বিক পরিবহনের বাসচালক আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘দুই ঘণ্টা অপেক্ষার পর এই (তিন নম্বর ঘাট) পর্যন্ত আসতে পারছি। আর ঘণ্টাখানেক লাগবে ফেরিতে উঠতে। ফেরি বন্ধ থাকলে আমাদের গাড়ির আয় কমে, ভোগান্তি বাড়ে।’

পণ্যবাহী পরিবহনশ্রমিকদের ভোগান্তিও কম নয়। দুই থেকে তিন দিন পর্যন্ত তাঁদের ঘাটে আটকে থাকতে হচ্ছে। চট্টগ্রাম থেকে লবণ নিয়ে যশোরে যাবেন ট্রাকচালক খোরশেদ আলী। গত বুধবার ভোরে পাটুরিয়ার প্রায় ছয় কিলোমিটার আগে উথলী এলাকায় এলে তাঁর ট্রাকটি আটকে দেয় পুলিশ। গতকাল সন্ধ্যায় পাটুরিয়া ট্রাক টার্মিনালে আসার পর থেকে নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি। তবে আজ শুক্রবার সকালেও তিনি ফেরি টিকিট পাননি।

ট্রাকচালক খোরশেদ আলী বলেন, ‘প্রায় ঘাটে এসে দুই থেকে তিন দিন পর্যন্ত আটকে থাকি। নিজের পকেটের টাকা খরচ করে খাওনদাওন করছি। মালিক তো আর এই টাকা দিবে না। শীতের মধ্যে সারা রাত আটকে থাকার কষ্টটাও কেউ বুঝবে না।’
শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির বলেন, ঘাট এলাকায় অতিরিক্ত যানবাহনের বিশৃঙ্খলা এড়াতে উথলী এলাকায় পণ্যবাহী গাড়িগুলোকে আটকে দেওয়া হয়। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী গাড়ির চাপ কমে এলে উথলী থেকে এসব পণ্যবাহী গাড়ি ঘাট এলাকায় পাঠানো হয়।

বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মহিউদ্দিন রাসেল বলেন, ঘন কুয়াশায় গতকাল দিবাগত রাত তিনটা থেকে আজ সকাল সাতটা পর্যন্ত ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ফেরি চালু হলে যাত্রীদের ভোগান্তি কমাতে যাত্রীবাহী বাস ও ব্যক্তিগত ছোট গাড়িগুলো আগে পারাপার করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন