বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বেড়া বাজারের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চায়ের দোকানি জানান, খেলা শুরুর আগে বাজিকরেরা দলভেদে বাজির রেট নির্ধারণ করে দেন। সময় যত গড়ায়, এই রেট ততই কমবেশি হতে থাকে। তাঁর চায়ের দোকানে বসে বা দোকানের সামনে প্রায়ই কিছু তরুণকে বাজি ধরতে দেখেন তিনি।

জুয়ায় অংশ নিয়েছেন এমন কয়েকজন ও চায়ের দোকানিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দেশে ও বিদেশে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক বা অন্য কোনো টুর্নামেন্ট শুরু হলে তা নিয়ে বাজি ধরা হয়। বছর দুয়েক আগে সীমিত পরিসরে শুরু হলেও সম্প্রতি নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় উপজেলায় জুয়ার বিস্তার লাভ করে। বর্তমানে বাংলাদেশ-পাকিস্তান টি-টোয়েন্টি ম্যাচ চলাকালেও জুয়ার আসর বসছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে আরও জানা গেছে, বেশ কিছু এলাকায় রয়েছে জুয়াড়িদের প্রতিনিধি (এজেন্ট)। এসব প্রতিনিধির কাছে টাকা জমা দিয়ে বাজি ধরতে হয়। আবার স্মার্টফোনে কিছু অ্যাপের মাধ্যমেও জুয়ার বাজি ধরার ব্যবস্থা রয়েছে। কোন দল জিতবে, কোন ক্রিকেটার কত রান করবেন বা কতগুলো উইকেট নেবেন, তা নিয়ে ধরা হচ্ছে বাজি। আবার ওভারে কত রান হবে, কোন ব্যাটসম্যান বেশি ছক্কা মারবেন, কোন বলে চার বা ছয় হবে, তা নিয়েও বাজি ধরা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পুলিশের কাছে তথ্য থাকলেও এখনো কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বেড়া মডেল থানার ওসি অরবিন্দ সরকার বলেন, ক্রিকেটকেন্দ্রিক জুয়া নিয়ে অভিযোগ তাঁর কানেও এসেছে। এ ব্যাপারে পুলিশের অবস্থান কঠোর। জড়িত ব্যক্তিদের চিহ্নিত করতে পারলেই আইনের আওতায় আনা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন