পুলিশ ও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, শনিবার রাত দেড়টার দিকে সদর উপজেলার এরুলিয়া এলাকায় চলন্ত ট্রাক থামিয়ে একটি গাছ থেকে শজনে পারছিলেন চালকের সহকারী হামিদ। এ সময় গৃহকর্তা টের পেয়ে বাড়ি থেকে বের হলে চালক ট্রাক নিয়ে পালানোর সময় হামিদ ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে হামিদ মারা যান। হামিদ ধোড়া গ্রামের বাসিন্দা।

এদিকে রোববার সন্ধ্যায় আবদুল হামিদের জানাজায় অংশগ্রহণ করতে যান ট্রাকমালিক মড়িয়া গ্রামের মোহাম্মদ রানা (৩৬)। জানাজা শেষে নিজের পরিচয় দিলে ট্রাকমালিককে জনতা গণপিটুনি শুরু করে। এ সময় স্থানীয় এক ব্যক্তি জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯–এ ফোন করলে পুলিশ রানাকে উদ্ধার করে থানায় হেফাজতে নেয়।

গাবতলী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, রাতে সদরের এরুলিয়া এলাকায় দুর্ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জনতার গণপিটুনির শিকার ট্রাকমালিক রানাকে উদ্ধার করে চিকিৎসা শেষে থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। পরে তাঁকে পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হবে।