default-image

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত ও হেফাজতে ইসলাম একই স্থানে একই সময়ে সমাবেশের ঘোষণা দেওয়ায় নারায়ণগঞ্জে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। রোববার সকাল ৬টা থেকে পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত নগর ভবন থেকে চাষাঢ়া শহীদ মিনার এবং শহীদ মিনার থেকে ৩০০ শয্যা হাসপাতাল ও আশপাশের এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দিন।

১৯ সেপ্টেম্বর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে প্রয়াত হেফাজতে ইসলামের আমির আহমদ শফীকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআতের নেতা আলাউদ্দিন জিহাদীর বিরুদ্ধে ফতুল্লা মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। মামলা করেন দেওভোগ মাদ্রাসার খতিব হারুন অর রশিদ। সেদিনই ফতুল্লার থানা–পুলিশ মাহমুদপুর থেকে আলাউদ্দিন জিহাদীকে গ্রেপ্তার করে। আলাউদ্দিন জিহাদীর মুক্তির দাবিতে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত রোববার সমাবেশ করার ঘোষণা দেন। একই দিনে হেফাজতে ইসলাম পাল্টা সমাবেশ করার ঘোষণা দিলে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

বিজ্ঞাপন

এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার মুফতি আলাউদ্দিন জিহাদী রোববার দুপুরে জামিন পেয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আনিসুর রহমানের আদালত এ জামিন মঞ্জুর করেন। জামিনের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ওয়াজেদ আলী খোকন। তিনি বলেন, অভিযোগপত্র দাখিল হওয়া পর্যন্ত এ জামিন বহাল থাকবে। মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য সিআইডিকে নির্দশ দিয়েছেন আদালত।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জসীম উদ্দিনের আদেশে উল্লেখ করেন, আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাআত নামের সংগঠনটি শহরের ২ নম্বর রেলগেইট এবং সংলগ্ন এলাকায় রোববার সভার আয়োজন করার ঘোষণা দিয়েছে। একই স্থানে একই সময়ে অপর একটি পক্ষ (হেফাজতে ইসলাম) সভা করার ঘোষণা দিয়েছে। দুটি পক্ষ একই স্থানে একই সময়ে জমায়েত হওয়ার ঘোষণা দেওয়ায় ভীতি জন্মেছে, ওই স্থান এবং আশপাশের এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি মারাত্মক অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ওই স্থান ও আশপাশের এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে জমায়েত কিংবা সভা রহিত করা প্রয়োজন। এ জন্য তিনি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করেন।

জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, ওই এলাকায় যেকোনো ধরনের জটলা, সভা, মিছিল কিংবা সমাবেশ অথবা যেকোনো ধরনের অস্ত্রবহন ও সন্দেহজনক ঘোরাফেরা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। ওই এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা ব্যাঘাত সৃষ্টি করে এমন কোনো কাজ করা যাবে না। কোনো মাইক বা হর্ণ ব্যবহার করা যাবে না। তবে জরুরি সেবায় নিয়োজিত যানবাহন এই আদেশের বাইরে থাকবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন