default-image

বান্দরবানের চিম্বুক পাহাড়ে পাঁচ তারকা হোটেল ও বিনোদন পার্ক নির্মাণের প্রতিবাদে আবারও পদযাত্রা করেছেন ম্রো সম্প্রদায়ের লোকজন। আজ রোববার চিম্বুক পাহাড়ের রামরিপাড়া থেকে হাজারো ম্রো নারী-পুরুষ পদযাত্রা করে বান্দরবান জেলা শহরে এসে সমাবেশ করেন। এর আগেও কালচারাল শোডাউন নাম দিয়ে সাংস্কৃতিক শোভাযাত্রা করেছিলেন ম্রোরা।

পাহাড়ি সড়কে প্রায় সাড়ে পাঁচ ঘণ্টা হেঁটে কয়েক হাজার ম্রো নারী ও পুরুষ রোববার বেলা আড়াইটায় বান্দরবান জেলা শহরের রাজার মাঠে এসে পৌঁছান। জেলা শহরে নাগরিক সমাজের লোকজন তাঁদের স্বাগত জানান। এ সময় রাজারমাঠে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন ম্রোরা। সমাবেশে লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান সিংপাত ম্রো। এতে বলা হয়, ম্রোদের ‘কালচারাল শোডাউনসহ’ নানা প্রতিবাদ উপেক্ষা করে চিম্বুকের নাইতংপাহাড়ে হোটেল ও বিনোদন পার্ক নির্মাণ চলছে। এ জন্য চিম্বুক পাহাড়বাসী আবার লংমার্চ (পদযাত্রা) করতে বাধ্য হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে হোটেল ও বিনোদন পার্কের প্রকল্প বাতিল ও নির্মাণকাজ বন্ধ না করলে আরও কঠোর কর্মসূচি নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

ম্রোদের সমাবেশে সংহতি প্রকাশ করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বন ও ভূমি অধিকার সংরক্ষণ আন্দোলনের সভাপতি জুয়ামলিয়ান আমলাই বম। আরও বক্তব্য দেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র রেংয়ং ম্রো।

সমাবেশে ম্রোদের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বান্দরবান জেলা পরিষদ নাইতংপাহাড়ে ম্রোদের জুমের জমি অবৈধভাবে ইজারা দিয়েছে। ম্রোদের এ জমি দখল করে হোটেল ও বিনোদন পার্ক নির্মাণ করা হলে প্রত্যক্ষভাবে ছয়টি ম্রোপাড়া উচ্ছেদ হবে। পরোক্ষভাবে আরও ১১৫টি পাড়ার ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে।

চিম্বুক পাহাড়ের বাসিন্দা রেংয়ং ম্রো বলেছেন, চিম্বুক ও নাইতংপাহাড়ের জমি আর ম্রোদের জীবন আলাদা করে ভাবা যায় না। হোটেল ও বিনোদন পার্কে প্রকল্প বাতিল করার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন