বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এজাহার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মোস্তফা মিয়ার পুত্রবধূর একটি সোনার চেইন হারিয়ে গিয়েছিল। ওই চেইন চুরি অপবাদ দিয়ে তাসলিমা বেগমকে মারধর করেন শামছুন্নাহার ও তাঁর দুই ছেলে ইয়াসিন ও মোফাচ্ছের। ওই নারীকে রক্ষা করতে এলে আরও দুই প্রতিবেশীকে মারধর করা হয়। মারধরের ওই ঘটনা ভিডিও করে ফেসবুকে পোস্ট দেন এক প্রতিবেশী। ঘটনার দুদিন পর বিষয়টি চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মিলন মাহমুদের নজরে আসে। তিনি এ বিষয়ে থানা-পুলিশকে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন। এরপর গতকাল তাসলিমা বাদী হয়ে ওই তিনজনকে আসামি করে থানায় নারী নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা করেন। রাতেই ইয়াসিন ও মোফাচ্ছেরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তাসলিমা বেগমের বড় বোন আমেনা বেগম বলেন, তাঁদের সোনার চেইন হারিয়ে গিয়েছিল। পরে সেটি খুঁজে পেয়েছেন। কিন্তু অন্যায়ভাবে তাঁর ছোট বোনকে মারধর করা হয়েছে। এ ঘটনার বিচার চান তাঁরা।

ফরিদগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদ হোসেন বলেন, মোস্তফা মিয়ার দুই ছেলে ইয়াসিন ও মোফাচ্ছেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আজ সোমবার দুপুরে তাঁদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন