বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, সোমবার রাতে মন্টু তাঁর বন্ধু অনিক, ফাহিমসহ কয়েকজন তারাবির নামাজ শেষে বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় কালিগঞ্জ উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও একই এলাকার মো. বাক্কার মিয়ার ছেলে বন্ধনসহ কয়েকজন তাঁদের চোখে টর্চ মারেন। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে তর্ক হয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার বন্ধন তার সহপাঠীদের নিয়ে কালিগঞ্জ বাজারে অবস্থান নেয়। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মন্টু বাজারে এলে বন্ধন ও তার বন্ধুরা তাঁকে এলোপাতাড়ি মারধর ও উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয় বাসিন্দারা গুরুতর আহত অবস্থায় মন্টুকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

দুর্গাপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. নয়ন হোসেন বলেন, ওই তরুণের লাশ রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। আগামীকাল (বুধবার) ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ ঘটনায় মামলা করা হবে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁদের জানানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন