বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অভিযোগের বিষয়ে কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনের সাংসদ ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক রেলপথমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক বলেন, ‘আমি হস্তক্ষেপ করতে যাব কেন? ওদের (স্বতন্ত্র) কারও কোনো জনসমর্থন নেই।’ তিনি আরও বলেন, যাঁরা কুমিল্লায় সংবাদ সম্মেলন করতে এসেছেন, তাঁরা কেউ বিদ্রোহী, কেউ স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী। এঁদের কারও পক্ষে এলাকায় জনসমর্থন নেই। নৌকার পক্ষে এলাকায় গণজোয়ার তৈরি হয়েছে। এঁদের কর্মসূচির কোনো ভিত্তি নেই। দলীয় কেউ (বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র) যদি থাকে তাঁর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

‘চৌদ্দগ্রাম উপজেলার সকল স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীদের’ ব্যানারে মঙ্গলবার বেলা ১১টায় কুমিল্লা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন গুণবতী ইউপিতে চশমা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাম মাওলা।

default-image

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার ১৩টি ইউপির মধ্যে ১২টিতে চতুর্থ ধাপে নির্বাচন হচ্ছে। এর মধ্যে দুটি ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। অপর ১০টিতে আগামী ২৬ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ। কিন্তু নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীরা এলাকায় প্রচারণা চালাতে পারছেন না। উপজেলার গুণবতী, কনকাপৈত, জগন্নাথদীঘি, বাতিসা, শুভপুর, আলকরা, কাশিনগরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা, প্রচারে বাধা, মামলা-হামলার ভয়ভীতি প্রদর্শনসহ নৌকায় ভোট না দিলে মেরে ফেলা ও এলাকাছাড়া করার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়, বহিরাগত অস্ত্রধারীদের এনে মোটরসাইকেল মহড়া দিয়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করা হচ্ছে। তাঁদের কর্মীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি–ধমকি দেওয়া হচ্ছে। নৌকার লোকজন প্রকাশ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থক ও ভোটারদের কেন্দ্রে না আসার জন্য হুমকি দিচ্ছেন। এমন অডিও-ভিডিও রেকর্ডও তাঁদের হাতে রয়েছে বলে তাঁরা জানান।

লিখিত বক্তব্য আরও বলা হয়, লিখিতভাবে অনেক অভিযোগ করার পরও কোনো প্রতিকার পাননি। স্থানীয় সাংসদ মো. মুজিবুল হক নির্বাচনে অবৈধ হস্তক্ষেপ করছেন। এটি বন্ধ করার জন্য প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছেন তাঁরা।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন শুভপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এ এস এম শাহীন মজুমদার, জগন্নাথদীঘির মাহবুবুল হক খান, কনকাপৈতের মো. বেলাল হোসেন, চিওড়ার মো. আবু তাহের, বাতিসার ফারুক হোসেন মজুমদার, কনকাপৈতের মো. ইকবাল হোসেন, গুণবতীর মোস্তফা কামাল প্রমুখ।

পরে একই দাবিতে কুমিল্লা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এতে প্রার্থীদের পাশাপাশি তাঁদের কয়েক শ কর্মী–সমর্থক অংশ নেন। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের দপ্তরে স্মারকলিপি দেন তাঁরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন