default-image

খেতের সবজি নষ্ট করায় ছাগলটি জবাই করে খেয়ে ফেলেন খেতের মালিক। এরপর খেতের মালিক আজিজুর রহমান খানকে (৩৫) বেদম মারপিট করেন ছাগলের মালিক। মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়। হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে গত বুধবার গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালীয়া ইউনিয়নের রয়েন গ্রামে। নিহত আজিজুর রয়েন গ্রামের মৃত আবুল হাশেম খানের ছেলে।

গতকাল বৃহস্পতিবার নিহত আজিজুরের স্ত্রী আসমা আক্তার (২৪) ওই ঘটনায় বাদী হয়ে ছাগলটির মালিক মো. মোস্তফাসহ ছয়জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, উপজেলার জাঙ্গালীয় ইউনিয়নের রয়েন গ্রামে গত মঙ্গলবার দুপুরে মো. মোস্তফার একটি ছাগল প্রতিবেশী আজিজুর রহমানের সবজিখেতে গিয়ে বেশ কিছু সবজি নষ্ট করে। পরে আজিজুর রহমান ছাগলটিকে ধাওয়া দিয়ে ধরে ফেলেন। রাতে আটক করা ছাগলটি জবাই করে ভোজের আয়োজন করেন আজিজুর রহমান ও তাঁর লোকজন।

বিজ্ঞাপন

পরদিন বুধবার ছাগল জবাই করে খাওয়ার খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। ওই দিন আজিজুর রহমান তাঁর বাড়ি থেকে বের হয়ে স্থানীয় একটি বাজারের দিকে যাওয়ার পথে ছাগলের মালিক মো. মোস্তফা তাঁকে আটকান। এ সময় ছাগল জবাই করে খাওয়া নিয়ে আজিজুর ও মোস্তফার মধ্যে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়।

একপর্যায়ে মোস্তফা তাঁর লোকজন নিয়ে আজিজুর রহমানের ওপর হামলা চালান এবং এলোপাতাড়ি মারধর করেন। এ সময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন।

কালীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শহিদুল ইসলাম বলেন, গতকাল নিহত আজিজুরের স্ত্রী কালীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা করেছেন। মামলায় হামলাকারী মো. মোস্তফাসহ ছয়জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন