default-image

বগুড়া শহরের একটি প্রেসে ছাপা হচ্ছিল বিড়ির প্যাকেটে ব্যবহৃত সরকারি রাজস্বের নকল ব্যান্ডরোল। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল ওই ছাপাখানায় অভিযান চালিয়ে ১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা মূল্যের নকল ব্যান্ডরোল এবং ব্যান্ডরোল তৈরির ডাইস ও প্লেট জব্দ করেছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে নকল ব্যান্ডরোল কারবারের সঙ্গে জড়িত তিনজনকে।

আজ বৃহস্পতিবার বগুড়া শহরের বাদুরতলা চকযাদু ক্রস লেনের প্রেসপট্টির একটি ছাপাখানায় জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল এই অভিযান পরিচালনা করে। গ্রেপ্তার তিনজন হলেন জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার ভুগোইল গ্রামের ছানোয়ার হোসেন (৩৫), বগুড়া শহরের মাটিডালি মধ্যপাড়ার সোহাগ ইসলাম (২৬) এবং শহরের নিশিন্দারা মধ্যপাড়ার জহুরুল ইসলাম (৩৮)। অভিযান টের পেয়ে পালিয়ে যান ছাপাখানার মালিক স্বপন সরদার।

অভিযানকালে নকল ব্যান্ডরোল তৈরি কাজে ব্যবহৃত দুটি ডাইস ও প্লেট ছাড়াও প্রতিটি ৯ টাকা ৮০ পয়সা সমমূল্যের ১৩ লাখ ৯২ হাজার নকল ব্যান্ডরোল বা মোট ১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা সমমূল্যের নকল ব্যান্ডরোল জব্দ করা হয়।
বিজ্ঞাপন

অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া বগুড়া জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক এমরান মাহমুদ বলেন, গোয়েন্দা পুলিশের কাছে তথ্য ছিল, শহরের বাদুরতলা চকযাদু ক্রস লেনে প্রেসপট্টির একটি ছাপাখানায় নকল ব্যান্ডরোল ছাপা হচ্ছে। এই গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আজ সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। ওই প্রেসের কোনো নাম ছিল না। অভিযানকালে নকল ব্যান্ডরোল তৈরি কাজে ব্যবহৃত দুটি ডাইস ও প্লেট ছাড়াও প্রতিটি ৯ টাকা ৮০ পয়সা সমমূল্যের ১৩ লাখ ৯২ হাজার নকল ব্যান্ডরোল বা মোট ১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা সমমূল্যের নকল ব্যান্ডরোল জব্দ করা হয়। অভিযানের বিষয়টি টের পেয়ে পালিয়ে যান ছাপাখানার মালিক স্বপন সরদার। তবে তাঁর আত্মীয় সোহাগ ইসলাম ছাড়াও নকল ব্যান্ডরোল কারবারের সঙ্গে জড়িত দুই ক্রেতা জহুরুল ইসলাম ও ছানোয়ার হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার চক্রটি সরকারি রাজস্ব ফাঁকি দিতে বিড়ির প্যাকেটে এসব নকল ব্যান্ডরোল ব্যবহার করছে। গ্রেপ্তার তিনজন ও পলাতক প্রেসমালিককে আসামি করে বগুড়ার সদর থানায় মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0