default-image

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় শয়নকক্ষে গলায় ওড়না লাগানো অবস্থায় ঝুলছিল মীম আকতার (১২) নামের এক মেয়ে। এ দৃশ্য দেখে মা দৌড়ে গিয়ে ওড়না কেটে মেয়েকে মাটিতে নামান। দ্রুত নেওয়া হয় হাসপাতালে। তবে শেষরক্ষা হয়নি। চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মায়ের বরাতে পুলিশ এমন কথা জানিয়েছে। মায়ের বকাঝকায় অভিমানে মেয়ে এমন করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

মীম উপজেলার আনারপুর-কচুগাড়ি গ্রামের মোকতাল হোসেনের মেয়ে এবং কালেরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী। গতকাল মঙ্গলবার রাত আটটার দিকে তাদের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী ও পুলিশের ভাষ্য, মীমের বাবা ঢাকায় কাজ করেন। মা লাভলী খাতুনের সঙ্গে সে বাড়িতে থাকত। গতকাল সন্ধ্যার দিকে সে খেলাধুলা করছিল। আর মা ডাকছিলেন কাজের জন্য। মেয়ে না আসায় মা তাকে বকাঝকা করেন। পরে শয়নকক্ষের ভেতরে গলায় ওড়না লাগানো অবস্থায় মেয়েকে ঝুলতে দেখেন মা। পরে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয় মীমকে।

বিজ্ঞাপন

ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আনোয়ারা বেগম বলেন, মীমকে হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসা দেওয়ার কোনো সুযোগ ছিল না।

ধুনট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন বলেন, রাতে মীমের মরদেহ আইনি প্রক্রিয়া শেষে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ নেই।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শেরপুর-ধুনট সার্কেল) গাজিউর রহমান বলেন, সংবাদ পেয়ে গতকাল রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। কোনো অভিযোগ না থাকায় মীমের লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0