default-image

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে হলফনামায় মামলার তথ্য গোপন করার অভিযোগে বিএনপির মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সরকার জহিরুল হকের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। অসম্পূর্ণ হলফনামা ও সমর্থিত ভোটারের সই না মেলার কারণে বাতিল হয়েছে স্বতন্ত্র প্রার্থী গাজী আবদুল হান্নানের মনোনয়নপত্র।

মঙ্গলবার রিটার্নিং কর্মকর্তা ও কুমিল্লার জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন মনোনয়নপত্র যাচাই–বাছাই শেষে এই ঘোষণা দেন। এদিকে যাচাই–বাছাই শেষে চাচা–ভাতিজাসহ ছয়জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ১০ ডিসেম্বর ওই উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে ১৫ নভেম্বর আটজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী জাহাঙ্গীর খান চৌধুরী, বিএনপির মনোনীত সরকার জহিরুল হক মিঠুন, জাতীয় পার্টির শাহ আলম সরকার, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির আল আমিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এ জাহের, আবু সায়িব বাপ্পী, আবু তৈয়ব অপি ও গাজী আবদুল হান্নান।

বিজ্ঞাপন

এর মধ্যে এম এ জাহেরের আপন ভাতিজা আবু সায়িব বাপ্পী ও আবু তৈয়ব অপি। আবু সায়িব ও আবু তৈয়ব প্রয়াত চেয়ারম্যান মুহাম্মদ তাহেরের ছেলে। এম এ জাহের প্রয়াত চেয়ারম্যানের ছোট ভাই।

মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্তের বিষয়ে জানতে চাইলে সরকার জহিরুল হক মিঠুন ও গাজী আবদুল হান্নান জানিয়েছেন, তাঁরা এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, গত ১৬ সেপ্টেম্বর ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ আবু তাহের মারা যান। ৩ নভেম্বর তফসিল ঘোষণা করা হয়। শূন্য পদে উপনির্বাচনে আটজন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর মধ্যে দুইজনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। যাঁদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে তাঁরা চাইলে ১৮, ১৯ ও ২০ নভেম্বরের মধ্যে আপিল কর্তৃপক্ষ (জেলা প্রশাসক) বরাবর আপিল করতে পারবেন। ২৩ নভেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ও ১০ ডিসেম্বর নির্বাচন হবে। ভোটের দিন সকালে ভোটকেন্দ্রে ব্যালট পেপার যাবে।

মন্তব্য পড়ুন 0