বিজ্ঞাপন

এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গত শুক্রবার রাতে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় জড়িত ছাত্রলীগের একটি পক্ষের কর্মী হিসেবে পরিচিত সাইফুর রহমান, তারেকুল ইসলাম, অর্জুন লস্কর, রবিউল ইসলাম, শাহ মো. মাহবুবুর রহমান ওরফে শাহ রনি ও মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুমকে এজাহারভুক্ত আসামি করে মামলা হয়। মামলার এজাহারের বাইরে আরও দু-তিনজনকে আসামি করা হয়। নগরীর বাইরে পালাতক থাকা অবস্থায় মোট আটজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ ও র‌্যাব।

মামলায় এজাহারভুক্ত ছয়জন আসামিসহ মোট আটজনকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। এজাহারের বাইরে আইনুদ্দিন ও মিসবাহউর রহমান ওরফে রাজনকেও রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। তাঁরা সবাই এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে অবস্থান নেওয়া ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত হিসেবে পরিচিত। প্রথম পর্যায়ে গ্রেপ্তার হওয়া প্রধান আসামি সাইফুর রহমানসহ তিনজনকে সোমবার, দ্বিতীয় ধাপে সন্দেহভাজন দুই আসামিসহ তিনজনকে মঙ্গলবার, তৃতীয় পর্যায়ে তারেকসহ দুজনকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন