ছয় প্রার্থীর চারজনই দায়গ্রস্ত

বিজ্ঞাপন

বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের আসন্ন উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীকারী ছয়জন প্রার্থীর মধ্যে চারজন ব্যবসায়ী, একজন গৃহিণী ও একজন শিক্ষক। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মনোনীত দুই প্রার্থীসহ তিনজনের শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক, দুজন স্নাতকোত্তর ও একজন এলএলবি পাস।

সম্পদশালী হয়েও আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ প্রতিদ্বন্দ্বী চার প্রার্থী দায়গ্রস্ত। নৌকার প্রার্থী সাহাদারা মান্নানসহ পাঁচজনই সারিয়াকান্দি উপজেলার বাসিন্দা। সোনাতলা উপজেলার বাসিন্দা শুধু ধানের শীষের প্রার্থী আহসানুল তৈয়ব।

নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা প্রার্থীদের হলফনামা ঘেঁটে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

হলফনামায় দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ছয় প্রার্থীর মধ্যে সবচেয়ে সম্পদশালী আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাহাদারা মান্নান। তাঁর স্থাবর ও অস্থাবর মিলে ৯ কোটি ৯৫ লাখ ৬৫ হাজার ৯৫৩ টাকার সম্পদ। তবে রয়েছে ধারদেনার স্বভাব। ব্যক্তিগত ঋণ ছাড়াও জমি বিক্রির জন্য তিনি অগ্রিম ৯০ লাখ ৭১ হাজার ৬৫০ টাকা ধারদেনা করেছেন। তাঁর শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক পাস। সারিয়াকান্দি সদরের হিন্দুকান্দি এলাকার বাসিন্দা সাহাদারা গৃহকর্মী বলে হলফনামায় উল্লেখ করেছেন।

সোনাতলা উপজেলার নতুন বন্দর এলাকার বাসিন্দা ও ধানের শীষের প্রার্থী এ কে এম আহসানুল তৈয়ব স্নাতক পাস। স্থাবর ও অস্থাবর মিলে তাঁর প্রায় দুই কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। তাঁরও রয়েছে ধারদেনার স্বভাব। জনতা ব্যাংকের সোনাতলা শাখায় রয়েছে তাঁর ৩৫ লাখ টাকা দেনা।

ঠিকাদারি ও কীটনাশক ব্যবসায়ী আহসানুলের বিরুদ্ধে ২৬টি মামলার কথা উল্লেখ রয়েছে হলফনামায়। এর মধ্যে ১০ মামলায় জামিনে রয়েছেন তিনি। বাকি মামলাগুলো নিষ্পত্তি হয়েছে। ২০০৭ সালের ৩১ জানুয়ারি তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের করা একটি মামলা বর্তমানে বিচারাধীন রয়েছে।

জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মোকছেদুল আলমের শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক। পেশায় শিক্ষক। আবাদি জমি রয়েছে তাঁর সবচেয়ে বেশি। এই জমির পরিমাণ প্রায় সোয়া ১৬ বিঘা। তবে তাঁরও রয়েছে ঋণের স্বভাব। এনসিসিসি ব্যাংক বগুড়া শাখায় রয়েছে তাঁর ২ কোটি ২৫ লাখ টাকার দায়দেনা। তাঁর বাড়ি সারিয়াকান্দির আমতলী মধ্যপাড়া গ্রামে।

অন্য প্রার্থীদের মধ্যে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের বটগাছ প্রতীকের প্রার্থী নজরুল ইসলাম সারিয়াকান্দির মাস্টারপাড়ার বাসিন্দা। স্নাতকোত্তর পাস নজরুল পেশায় ব্যবসায়ী। তাঁর বিরুদ্ধে বিচারাধীন রয়েছে একটি নাশকতার মামলা। ৯০ শতক জমি থাকলেও এখন তা যমুনার গর্ভে। এখন সম্বল বলতে নগদ ও ব্যাংকে রাখা ৬ লাখ টাকা। সোনালী ব্যাংক সারিয়াকান্দি শাখা ও ইসলামী ব্যাংক বগুড়া শাখায় তাঁরও রয়েছে প্রায় ১৮ লাখ টাকা দেনা।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের (পিডিপি) বাঘ মার্কার প্রার্থী মো. রনি বর্তমানে বগুড়া সদরের চক আকাশতারা এলাকায় বসবাস করেন। তাঁর শিক্ষাগত যোগ্যতা এলএলবি। পেশায় ব্যবসায়ী এই প্রার্থীর সারিয়াকান্দির বড়ইকান্দিতে রয়েছে ধান-চালের ব্যবসা। সহায় সম্পদ বলতে রয়েছে মাত্র ৮ লাখ টাকা।

ট্রাক প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইয়াসির রহমতুলল্লাহ। তিনি পেশায় ব্যবসায়ী। সারিয়াকান্দির নারচি এলাকার বাসিন্দা ইয়াসিরের শিক্ষাগত যোগ্যতা এমবিএ। স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ বলতে ব্যাংকে ও নগদ রয়েছে ৫২ লাখ টাকা। তবে তাঁর স্বর্ণালংকার সবচেয়ে বেশি। রয়েছে ৮৫ ভরি স্বর্ণালংকার।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, বগুড়া-১ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৮ হাজার ৯০২ জন। এর মধ্যে সারিয়াকান্দি উপজেলায় ভোটার ১ লাখ ৬৭ হাজার ৭৮২ এবং সোনাতলায় ১ লাখ ৪১ হাজার ১২০। আগামী ২৯ মার্চ উপনির্বাচনে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন