বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

একপর্যায়ে আগের কমিটি বিলুপ্ত করে ৭ সেপ্টেম্বর সম্মেলন ছাড়াই নতুন কমিটি ঘোষণা করা হয়। ১৫ সদস্যের কমিটির আহ্বায়ক করা হয় একসময়কার নরসিংদীর মনোহরদী ডিগ্রি কলেজের ছাত্রলীগের কর্মী রাশিদা খানমকে। যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয় তিনজনকে। তাঁরা হলেন মোছা. রোকসানা, জায়েদা খাতুন আকন্দ ও ঝর্ণা আক্তার। কমিটির ১১ সদস্য হলেন রুম্পা আক্তার, দীপা রাণী বর্মণ, রোজি আক্তার, বাবলি আক্তার, চম্পা আক্তার, নাদিয়া আক্তার, লিপি আক্তার, আকলিমা আক্তার, রেখা আক্তার, লুৎফা আক্তার ও জনি আক্তার।

জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলারা বেগম ও সাধারণ সম্পাদক বিলকিছ বেগমের স্বাক্ষরে এই কমিটি অনুমোদিত হয়। আহ্বায়ক কমিটিকে আগামী চার মাসের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। ঘোষিত এই কমিটির নামের তালিকা প্রকাশ হওয়ার পর বর্তমান ও বিলুপ্ত কমিটির নেতাদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমান কমিটিকে মেনে নেবে না বলে নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করেছে একটি পক্ষ।


নবগঠিত কমিটির সদস্য দীপা রাণী বর্মণ বর্তমান কমিটিকে মেনে না নেওয়ার দলের একজন। কমিটির তালিকা থেকে তাঁর নাম যেন বাদ দেওয়া হয়, সেই দাবি জানিয়ে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতিকে ফোনও করেন তিনি।

দীপা রাণী বলেন, ‘দুঃখের বিষয় কমিটির বেশির ভাগ সদস্য নিজের নামটি শুদ্ধভাবে লেখার যোগ্যতা নেই। বেশির ভাগ কোনো দিন রাজনীতি করেননি। সুতরাং এমন অসংগতিপূর্ণ কমিটিতে থাকব না।’

বিলুপ্ত কমিটির আহ্বায়ক নওরীন সুলতানা বলেন, ‘আমার কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে, সে তথ্য আমার জানা নেই। কোনো চিঠিও দেওয়া হয়নি। এককথায় জেলার নেতারা সাংগঠনিক প্রক্রিয়ার বাইরে গিয়ে কমিটি করেছেন। সেই কারণে কমিটির ঘোষণা আসার পর থেকে আমরা বেশির ভাগ নেতা এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নানা কর্মসূচি পালন করছি। এরই মধ্যে সাংবাদিক সম্মেলন করে আমরা আমাদের অবস্থান স্পষ্ট করেছি। রোববার আমরা সভা করব। পরদিন জেলা আওয়ামী লীগের কাছে আমাদের অসন্তোষের কথা লিখিতভাবে জানাব।’

ছয় বছরেও কমিটি করতে না পারার কারণ জানতে চাইলে নওরীন সুলতানা বলেন, কটিয়াদীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি হয় না দেড় যুগেরও বেশি সময় ধরে। এ কারণে মহিলা আওয়ামী লীগ গঠন নিয়ে জটিলতা দেখা দেয়। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে ঝামেলা চলমান থাকায় কমিটি করা যায়নি।


এ বিষয়ে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলারা বেগম জানান, যা হয়েছে গঠনতন্ত্র অনুসরণ করে করা হয়েছে। এর চেয়ে বেশি মন্তব্য করতে রাজি হননি তিনি।

জানতে চাইলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ আফজল আজ মুঠোফোনে বলেন, ‘কটিয়াদী মহিলা আওয়ামী লীগ গঠন নিয়ে একাংশের অসন্তোষের কথা জানি। তবে এর প্রতিকার দেওয়ার কর্তৃপক্ষ আমরা নয়। বেঁধে দেওয়া সময়সীমার মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি উপহার দেওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন নবগঠিত কমিটির আহ্বায়ক রাশিদা খানম।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন