default-image

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ধর্ষকের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে চলা আন্দোলনকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যুক্তিযুক্ত মনে করেছেন, এই জন্য আইন সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের বিধান যুক্ত করা হয়েছে। জনগণের যুক্তিযুক্ত দাবিকে শেখ হাসিনার সরকার মেনে নেয়। তবে এই সব দাবি নিয়ে রাজনীতি করতে চাইলে এ দেশের জনগণ তা করতে দেবে না। জনগণ এর দাঁতভাঙা জবাব দেবে।

শনিবার দুপুরে ব্রা‏হ্মণবাড়িয়ার কসবায় নবনির্মিত নয়নপুর কোনাঘাটা ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। আইন, বিচার ও সংসদবিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত হন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আর্থিক সহায়তায় ৫ কোটি টাকা ব্যয়ে কসবা উপজেলার বায়েক ইউনিয়নের নয়নপুর কোনাঘাটায় মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়। ওই প্রতিষ্ঠান নির্মাণের জন্য কসবা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রাশেদুল কাওসার ভূঁইয়া ৫৩ শতাংশ জমি দান করেন।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে স্থানীয় সাংসদ ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, মা ও শিশুর সেবা সঠিকভাবে দেওয়া না হলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ ভালো হবে না। কারণ, শিশুরা হলো জাতির ভবিষ্যৎ। তিনি হাসপাতালের চিকিৎসকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা দালালদের দৌরাত্ম্যকে প্রশ্রয় না দিয়ে রোগীদের সঠিক সেবা প্রদান করবেন।’

মন্ত্রী আরও বলেন, করোনায় বিশ্বব্যাপী মহামারির মধ্যেও শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বের ফলে বাংলাদেশে মৃত্যুর হার অনেক কম এবং মানুষের কষ্টও অনেক কম হয়েছে। শীতে করোনার প্রকোপ বাড়তে পারে। তাই একটি কার্যকর টিকা আবিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত তিনি জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।

কসবা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. রাশেদুল কাওসার ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাসুদ উল আলম, কসবা পৌরসভার মেয়র মো. এমরান উদ্দিন, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. মনির হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা সিদ্দিকী, সহকারী কমিশনার (ভূমি) হাছিবা খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক এম জি হাক্কানী প্রমুখ।

মন্তব্য পড়ুন 0